Guest Join UsHey Guest,
Welcome, Join our awesome community where you can discuss on various topics :-
Some point about your community
Some point about your community
Some point about your community
Some point about your community
Some point about your community
Some point about your community
Some point about your community
Much More.. or Create an Account


I am super Awesome Announcement, with links and can be used to announce important things. Check here
Thread Rating:
  • 0 Vote(s) - 0 Average
  • 1
  • 2
  • 3
  • 4
  • 5
সোনালী যেভাবে আমার শক্ত পেনিসটা মুখে পুরে
#1
সুখানুভূতি কাহিনী - লেখক কলেজে তখন সবে ভর্তি হয়েছি ফার্স্ট ইয়ারে। যখন আমার বারো বছর বয়স, হঠাৎই মা এই পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলেন। বাবাকেও কাছে পাই না। চাকরীর সূত্রে বাবা এখানে থাকেন না। তাকে মাঝে মাঝে বিদেশেও যেতে হয়। বাড়ীতে একা থেকে মন টেকে না। সঞ্জু, ফিরোজ, ওরা সব আসে, আমার বন্ধুরা। গল্প করি, ক্যারাম খেলি, আড্ডা মারি। কিন্তু তাহলেও কিসের যেন একটা অভাব বোধ করি। আমার বন্ধুরা সব গার্ল ফ্রেন্ড নিয়ে ঘুরে বেড়ায়। সঞ্জুর সাথে ডলি, ফিরোজের সাথে বান্টি। কিন্তু আমার কেউ নেই। আমি গার্ল ফ্রেন্ড এর খোঁজ করি, কিন্তু মনের মত সেরকম কাউকে পাই না। মা বলেছিল, বড় হলে তোর একটা সুন্দর দেখে বউ আনব। তোর আমি পরীর সাথে বিয়ে দেব। কিন্তু মা আজ বেঁচে নেই, আর আমার পরীর মত বউ খুঁজে দেওয়ারও কেউ নেই। আমি শুধু সুখের তাগিদে মাঝে মাঝে ঘরে থেকে মাস্টারবেট করি। লিঙ্গটি হাতে নিয়ে

নড়াচড়া করলে ওটা রীতিমতন রেগে ফুঁসে ওঠে। লম্বা মোটা শক্ত হয়ে যায়। হাত দিয়ে খেঁচতে থাকলে সারা শরীরে এক অসাধারণ অনুভূতি বয়ে যেতে থাকে। আমার হাতের মুঠোয় যখন লিঙ্গটি ক্রমশ আরো মোটা আর শক্ত হতে থাকে, তখন আমি আরো স্পীড বাড়াতে থাকি। একসময় বীর্যপাত যখন ঘটে যায়, দারুন আনন্দে আমার দেহমনও তখন ভরে যায়। আমি এই মাস্টারবেশন শুরু করেছি চোদ্দ পনেরো বছর বয়স থেকে। শরীরে কামের জোয়ার এসে গেলে আমাকে এটা করতেই হয়। দিনে অন্তত দু-তিনবার। শরীরে একটা অবসাদ চলে আসে। ঘুমিয়ে পড়ি, তারপর আবার আমার শরীর মন দুই-ই চাঙ্গা হয়ে ওঠে। আমার কখনও মনে হয় না এটা কোনো অপরাধ। শরীরের প্রয়োজনে মাষ্টারবেট করাতো স্বাভাবিক। এরজন্য পাপবোধ বা অনুশোচনা হওয়ার তো কোনো কারন নেই। আমার বন্ধুরা অবশ্য ছোটোবেলায় বলতো, এই শোন বাড়ীতে কিন্তু লুকিয়ে লুকিয়ে মাষ্টারবেট করবি। অন্যকেউ দেখে ফেললেই তুই কিন্তু লজ্জায় পড়ে যাবি। ওদের কথা শুনে আমার অবাক লাগত। কেন? এরজন্য লজ্জাবোধ হবে কেন? আমি তো কোনো খারাপ কাজ করি না। কারো ক্ষতি তো করি না। আমার মন প্রাণ যা চায় তাই তো করি। এতে আবার লুকোবার কি আছে? বন্ধুরা বলত, আসলে তোর বাড়ীতে বাবা, মা, ভাই বোন কেউ নেই। তাই এসব তুই বুঝিস না। এসব কাজ আড়ালে আবডালে লুকিয়ে চুরিয়েই করতে হয়। না-হলে কেউ যদি দেখতে পায়। তাহলে ভাববে ছেলে একদম গোল্লায় গেছে। আমার কিন্তু ওদের কথা শুনে প্রতিবাদ করতে ইচ্ছে করত। আমি কখনও গোল্লায় যাইনি।

পড়াশুনায় আমি কখনও ফাঁকি দিই নি। আমাকে ক্লাসের টিচাররা খুব লাইক করত। ক্লাসের গুডবয় হিসেবে আমার খুব নাম ছিল। আমার মনে হতো, কোনো কাজই আমি যখন লুকিয়ে চুরিয়ে করি না, তখন এটাই বা লুকোতে যাব কেন? এটাতো কোনো খারাপ কাজ নয়। বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমার মধ্যে সেই বোধটা এল। বুঝলাম, কেন এটা লুকিয়ে করতে হয়। ওরা তখন কেন আমায় মানা করত। এ জিনিষ সবার সামনে করা যায় না। তাহলে সেটা ভীষন দৃষ্টিকটু লাগে। এ জিনিষ আড়ালে আবডালেই করতে হয়। কারন পুরুষ মানুষ সাধারণত দুভাবে তাদের যৌন কামনা চরিতার্থ করে। এক হলো নারীর সাথে সঙ্গম করে, আর দুই হলো নিজেই নিজে হস্তমৈথুন করে। কামনা বাসনা পাপ নয়। কিন্তু জনসমক্ষে করাটা পাপ। কেউ দেখে ফেললে তখন তার চোখে নিজেকে খারাপ লাগে। সে তখন তার অন্য মানে খোঁজে। আমি খুব ভালোমতই বুঝতে পারি, ছোটোবেলাকার এই অভ্যাস আমি কিছুতেই ছাড়তে পারব না কোনোদিন। হয়তো আমার যখন বিয়ে হয়ে যাবে তখনও। স্ত্রীর সাথে যৌনসঙ্গমের পাশাপাশি হস্তমৈথুনও আমাকে চালিয়ে যেতে হবে। কারন এটা আমার সম্পূর্ণ একার জিনিষ। এর ভাগ আমাকে কাউকে দিতে হবে না। যদি আমি কোনো নারীর সাথে কখনও যৌনসঙ্গম করি তাহলে সে আনন্দ আমাকে সেই নারীর সাথেই ভাগ করে নিতে হবে। হস্তমৈথুনের মজা তখন আমি পাব না। কেন? কারন দুটোতেই আসে চরম পুলক। যদি হস্তমৈথুন করতে করতে আমার মনে হয়, এখন থাক। পরে অন্যসময় আমি চরম পুলক ঘটিয়ে নেব, তবে তা থামিয়েও দিতে পারি। কিন্তু নারীর সাথে করতে করতে থামিয়ে দিলে সেটা হবে অমানবিক, চরম নিষ্ঠুরতা, একটি মেয়ের যৌনসত্তার প্রতি অশ্রদ্ধা, অপমান। কিন্তু সেখানে মাষ্টারবেট? আমি যেন মুক্ত বিহঙ্গ। আমার ইচ্ছেটাই এখানে শেষ কথা। এ যেন এক অদ্ভূত সুখানুভূতি। আমাদের কলেজে নতুন মহিলা টিচারটি খুব দারুন। যাকে বলে একদম পরমা সুন্দরী। নাম সোনালী ম্যাম। বয়সটা তিরিশের কাছাকাছি হতে পারে, কিন্তু খুব সুন্দরী আর বুদ্ধিদীপ্ত চেহারা। অসাধারণ দেহের গড়ন ও মুখশ্রী যেকোনো পুরুষকে ভাসিয়ে নিয়ে যেতে পারে। আমাকে ওর এই সুন্দর চেহারা বারে বারেই মুগ্ধ করে। টিচার বলে ভাব জমাতে পারি না। কারন তাহলে কলেজ থেকে বিতারিত হয়ে যাব। হাজার হোক টিচারের সঙ্গে তো আর কামের গন্ধ চলে না। তাই ওনাকে আমার শ্রদ্ধার চোখেই দেখতে হয়। কিন্তু আমি জানতাম না উনি ডিভোর্সী। ভালোবেসেই বিয়ে করেছিল একজনকে। কিন্তু সে বিয়ে টেকেনি। বরের সাথে ছাড়াছাড়ি হওয়ার পর উনি একাই একটা ফ্ল্যাটে থাকেন। ফ্ল্যাটটা আবার আমার বাড়ী থেকে খুব দূরেও নয়। তবে খুব বিলাস বহূল ফ্ল্যাট। মহিলাটির একটা কাজের লোক আছে। সে সব ঘরের কাজকর্ম দেখাশোনা করে। উনি কলেজে পড়ান। আর পি এইচ ডি করার জন্য অবসর সময়ে বাড়ীতে বসেই পড়াশুনা করেন। একদিন কলেজে সোনালী টিচারকে বললাম-ম্যাম, আমাকে আপনি পড়াবেন? যদি বলেন তো আপনার বাড়ীতে গিয়ে আমি টিচিং নিয়ে আসতে পারি। উনি আমার

দিকে তাকালেন। আমাকে বেশ ভালো করে দেখলেন। বললেন-পড়তে যদি চাও? তাহলে আমার কাছে রাতে আসতে হবে। কারন আমি দিনের বেলায় আমি একদম সময় দিতে পারবো না। সকালবেলা তো এমনিই কলেজ থাকে। তোমারও সময় হবে না। আমার তো নয়ই। ভদ্রমহিলা আমাকে প্রশ্ন করছিলেন, তোমার নাম কি? উনি জানতে চাইছিলেন, বাড়ীতে আমার অভিভাবক কে আছেন? । আমি সব খুলে বললাম ওনাকে, ব্যাপারটা। আমার অভিভাবক কেবল আমিই। কারন বাবাতো এখানে থাকেন না। আর মাও গত হয়েছেন অনেকদিন আগে। তাই বাড়ীতে আমি একাই থাকি। উনি জিজ্ঞেস করলেন, তোমার বাড়ীটি কোথায়? জায়গার কথাটা বলাতে উনি বললেন, ও আমি তোমার বাড়ীর খুব কাছাকাছিই থাকি। তাহলে কাল থেকে এস পড়তে। আমার মনের মধ্যে যতই পাপ না থাক, নারী ব্যাপারটা নিয়ে আমার একটা আগ্রহ ছোটোবেলা থেকেই জন্মেছিল। সেই যখন ক্লাস সেভেনে পড়ি। মাঝে মাঝে অপার বিস্ময়ে মেয়েদের শরীরের দিকে তাকিয়ে বোঝার চেষ্টা করতাম ওদের শরীরের রহস্য। নিজের সমবয়সী মেয়েদের থেকে দশ-বারো বছরের এমনকি দ্বিগুণ বয়সী মহিলারাই আমাকে বেশি আকর্ষণ করত। কলেজে যেসব মেয়েদের দেখতাম, তাদের শরীরের রেখা, উঁচুনীচু-ভারী, এইসব ভাবটা ঠিক আমার মনে দাগ কাটতো না। আমি খালি নতুন ঐ নতুন মহিলা টিচারটিকে দেখতাম, আর ওনার আকর্ষনে আমার চোখ আটকে যেত। আমি মুগ্ধ হয়ে দেখতাম, আর নারীত্বর আকর্ষণের বিচারে আমার ওনাকেই মনে হতো সত্যিকারের নারী। প্রথম দিনই এমন একটা সাংঘাতিক কান্ড ঘটে যাবে, আমি ঘূণাক্ষরেও বুঝতে পারিনি। আমি তখন পড়তে গেছি ওনার বাড়ীতে। কাজের বউটি বলল-আপনি বসুন। দিদি একটু দোকানে গেছেন। আমি চুপচাপ ঘরের একটা কোনে বসে রইলাম। মনে হলো একটু বাথরুম দরকার আছে। প্রচন্ড জোড়ে একটা বেগ এসেছে। বউটাকেই জিজ্ঞেস করলাম, বাথরুমটা কোথায়? বলতে বলতে ও আমায় বাথরুমের দরজাটা দেখিয়ে দিল। কি বোকা বউটা। নিজেও খেয়াল করেনি আর আমিও বুঝতে পারিনি। দরজাটা ঠেলে যেই ভেতরে যাবার উদ্যোগ নিয়েছি, সঙ্গে সঙ্গে আমার প্রায় ভিরমি খাবার উপক্রম হলো। একি দেখছি আমি? আমার চোখ তখন বিস্ফারিত।গলাও শুকিয়ে কাঠ। বুকের ভেতর নিজের হৃৎস্পন্দন এত দ্রুত হচ্ছে যে আমি নিজেই শুনতে পাচ্ছি। দেখি বাথরুমে আমার মহিলা টিচার। ভিজে শরীর। সম্পূর্ণ নগ্ন। সাবান মেখে চলেছেন। আমাকে উনিও দেখতে পেয়েছেন। কি ভাবছেন কে জানে? আমি তাড়াতাড়ি ছুট্টে বাথরুমের কাছ থেকে চলে এলাম। যে অবস্থায় ওনাকে দেখলাম, এরপরে কি আর পড়ায় মন বসাতে পারব? শরীরের ভেতর কি যেন হচ্ছে। আমি কিছুতেই স্বাভাবিক হতে পারছি না। ওনার বাড়ী থেকেও বেরিয়ে চলে এলাম নিজের বাড়ীতে। তখনও চোখের সামনে ম্যামের নগ্ন দেহটা, ওনার শরীরের সব রহস্য উথাল-পাতাল, সমতল-উত্তলসহ ভেসে উঠছিল অজস্র বার। জীবনে প্রথম কোনো নগ্ন নারীকে দেখেছি, আমি সারা রাত বিছানায় ছটফট করতে লাগলাম, ভালো করে ঘুমোতেই পারলাম না। আমার এক প্রিয় বন্ধু ববিকে সব বললাম। ওর আবার মেয়েদের শরীর সম্পর্কে, জ্ঞানে, আমার থেকে অনেক কদম এগিয়ে। ও সব শুনে খি-খি করে হাসতে লাগল। আমাকে বলল-তুই একটা আস্ত কেলানে। এক্ষুনি বাথরুমে গিয়ে রিলিজ করে দে, তাহলেই সব ঠিক হয়ে যাবে।

রিলিজ করাটার মানে আমি খুব ভালো করেই বুঝি। মাষ্টারবেট করার পর যখন বীর্যটা ভেতর থেকে বেরিয়ে যায়, তখন ওটাকে রিলিজ করা বলে। এটাতো আমি ভাল করেই জানি। আমি নিজেও তো কতবার করি। এই মূহূর্তে হস্তমৈথুন করে নিজের কষ্টকে মুক্তি দেওয়া ছাড়া আমার আর কোনো উপায় এখন নেই। ববি ঠিকই বলেছে। আমার কাছে এটা একটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়াই। এতে অন্যায়ের কিছু নেই। তাড়াতাড়ি বাড়ী ফিরে তোয়ালে জড়িয়ে আমি বাথরুমে ঢুকলাম। চান করার আগে দাড়িয়ে দাড়িয়ে মাষ্টারবেট করবো। মনে মনে সোনালী ম্যাডামের নগ্ন দেহটা কল্পনা করতে লাগলাম। দেখলাম চনমন করে উঠছে শরীরটা। পেনিসটার ওপর আমার হাত পড়তেই ওটা ক্ষেপে উঠল। নিমেষে শক্ত ডান্ডায় পরিণত হতে লাগল। আমি জোড়ে জোড়ে হাত চালিয়ে বীর্যপাত ঘটানোর চেষ্টা করতে লাগলাম। এমন জোড়ে খেঁচতে লাগলাম, যে আমার বীর্যপাত খুব তাড়াতাড়িই হয়ে গেল। শাওয়ার খুলে চান করলাম। তারপর গা মুছে ঘরে ঢুকে বিছানায় শরীরটাকে এলিয়ে দিলাম। আমার চোখে লম্বা একটা ঘুম নেমে এল। বুঝলাম, বেশ স্বস্তি পেয়েছি এখন। ২ আমার বেশ চিন্তা হচ্ছে। কি করে সোনালী ম্যামের কাছে মুখ দেখাব? লজ্জাও হচ্ছে, আবার আবোল তাবোল চিন্তাতেও মাথায় জট পাকাচ্ছে। দুদিন ওনার কাছে মুখ দেখাব না বলে আমি কলেজেই গেলাম না। মনে মনে একটা অপরাধ বোধও হতে লাগল। আবার এটাও ভাবতে লাগলাম, দোষটা তো আমার নয়। কাজের বৌটাই তো আমায় ভুল বলেছে। সোনালী ম্যাডাম বাড়ীতেই ছিল। বাথরুমে উনি রয়েছেন, জানলে কি আর আমি যেতাম? তাছাড়া বাথরুমের দরজাটা ভেতর থেকে না লাগিয়ে কেন উনি চান করছিলেন, সেটাই আমার কাছে আশ্চর্য লাগছে। রাতে শুতে যাবার সময় আবার দেখলাম নগ্ন দেহটা আমার চোখের সামনে ভেসে উঠছে। এমন অসুবিধায় পড়ে গেছি যে কামাবেগটাকে কিছুতেই নিরসন করতে পারছি না। আমাকে সেই মূহূর্তে স্বমেহনের আশ্রয় নিতে হলো। নিজেকে কামপীড়নের আশ্রয় থেকে বাঁচাবার জন্য এটাই অনিবার্য এবং উপযুক্ত পথ। সোনালী ম্যাডাম কে নিয়ে চিন্তা করতে করতে যৌন অবদমন বেশি পরিমানে হয়ে স্বাভাবিকত্বর বাইরে চলে যাচ্ছে। আমার দেহ মন দুটোরই ক্ষতি করছে। বুঝতে পারছি আমার যৌন অপরাধ প্রবণতাকে বশে রাখার কাজেও এটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। আমি পড়াশুনার ফাঁকে ফাঁকে মাষ্টারবেশন করে নিজের কষ্টটাকে মুক্তি দেওয়ার চেষ্টা করতে লাগলাম। এই করে এক হপ্তাহ গড়িয়ে গেল। আমার বন্ধু ফিরোজ এল ঠিক এক হপ্তাহ পরে। আমাকে বলল, কি রে তুই কলেজে যাচ্ছিস না কেন? সোনালী ম্যাম তোর খোঁজ করছে। আমাকে বলছে তোকে ডেকে পাঠাতে। ফিরোজের কাছে আসল সত্যিটা লুকোলাম। বললাম-আমার শরীর খারাপ হয়েছিল, তাই যেতে পারিনি। কাল থেকে আবার কলেজ যাব। সোনালী টিচার আমার কেন খোঁজ করছে, আমি জানি। হয়তো আমাকে উনি কিছু বলবেন। কিন্তু আমার তো কোনো দোষ নেই। তাও ভুল যখন একটা করে ফেলেছি তখন কড়া কথা শুনতেই হবে। ম্যাডামের কাছে কান ধরে ক্ষমা চাইব। আর কখনও এমনটি হবে না, তার প্রতিজ্ঞাও করব। কিন্তু এভাবে বাড়ীতে চুপচাপ বসে থাকলে উনি হয়তো সত্যি সত্যি আমাকে সন্দেহ করবেন, তখন আমি আর কারো কাছে মুখ দেখাতে পারব না। ফিরোজ বলল,আমাকে উনি বলেছেন আজকেই তোকে ওনার ফ্ল্যাটে গিয়ে দেখা করতে। চমকে উঠলাম আমি, কি আবার বাড়ীতে ডেকেছে ম্যাডাম? ফিরোজও বুঝতে পারলো না ব্যাপারটা। আমাকে বলল-কেন কি হয়েছে? ওকে লুকোলাম। বললাম, ঠিক আছে তুই যা। আমি ম্যাডামের সাথে দেখা করে নেব। ভেতরে ভেতরে একটা বেশ টেনশন শুরু হয়ে গেল। সোনালী ম্যাডামের বাড়ী যাব না, কলেজে গিয়ে দেখা করব ঠিক বুঝে উঠতে পারলাম না। সারাদিনটা আমাকে এই বিষয় নিয়ে বেশ চিন্তায় ডুবিয়ে রাখল। রাতে যখন ঘুমিয়ে পড়লাম, হঠাৎ স্বপ্নে সোনালী ম্যাডামকে দেখতে লাগলাম। অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত বেশবাসে সুন্দর করে মোহিনী সাজে আমার সামনে এসে দাঁড়িয়েছে ম্যাডাম। আমার পাশে বসে, আমার মাথায় চুলে বিলি কেটে আদর করতে করতে উনি বলছেন, এই ছেলে লজ্জার কী আছে? মুখ তোলো, কথা

বলো। দেখো, আজ কেমন সেজেছি। কেন সেজেছি জানো? শুধু তোমার জন্য। যদিও আমি স্বপ্ন দেখছি, তাও এ ধরনের কথা ম্যাডামের মুখ দিয়ে শুনব, আমি কল্পনাও করতে পারিনি। দারুন এক ব্যক্তিত্বময়ী সৌম্য সুন্দরী নারীর মতন মনে হচ্ছিল ওনাকে। দুহাতে উনি আমাকে জড়িয়ে ধরলেন, বললেন-ওরে লাজুক ছেলে। অত লজ্জার কি আছে? তোমার শরীরে তো এখন যৌবন এসে গেছে। তুমি যা কর এত স্বাভাবিক শরীরেরই ধর্ম। এতে তো কোনো দোষ নেই। এতে তো কোনো অপরাধ বোধের জিনিষ নেই। এই বয়সে তুমি যা কর। সবাই তা করে। তোমার তো গর্ব হওয়া উচিত। শরীরে পৌরুষ থাকলে তাকে স্বাগত জানাতে হয়। যোগ্য সন্মান দিতে হয়। আমার সব গুলিয়ে যাচ্ছিল। ভাল করে চোখ মেলে তাকাতেই পাচ্ছিলাম না ওনার দিকে। এ কি বলছে ম্যাডাম? এরপরে যা ঘটল, তাতে আমার অবস্থা আরো চরমে উঠল। উনি এবার ওনার পেলব দুটি সুন্দর বুক, সুডৌল সুন্দর উদ্ধত স্তনযুগল উন্মুক্ত করে, আমার মুখটা তুলে ধরে আমার ঠোটে প্রথমে একটা ছোট্ট চুম্বন এঁকে দিয়ে তারপর আমার মুখের সামনে ওটা মেলে ধরলেন। যেন যৌবন মদে জারিত এক উর্বশী-রমণীর শরীরের উত্তাপ আমার দেহমনে, শিরায় শিরায় প্রচন্ড তুফান তুলছে। দেখলাম সোনালী ম্যাডাম আমাকে এমন ভাবে জড়িয়ে ধরেছে, যে ওনার বাহূর বন্ধন থেকে নিজেকে ছাড়াবার শক্তিও আমি তখন হারিয়ে ফেলেছি। ম্যাডাম আমার চুলের মধ্যে আঙুল চালিয়ে আদর করতে করতে বললেন, কী? ভালো লাগছে? সোনালী ম্যাডাম আমার ঠোটের ওপর ওনার স্তনের বোঁটাটা ঘষা লাগাচ্ছিলেন। বোবা হয়ে আমি তখন ওনার বুকের উষ্ন পরশে নিজেকে নিমগ্ন করে ফেলেছি। মুখ দিয়ে কথা সরছে না। আমিও বোঁটাটা আমার ঠোটের মধ্যে প্রবেশ করানোর জন্য ওনাকে নীরব সন্মতি জানিয়ে দিলাম। হঠাৎ সোনালী ম্যাডাম আমাকে প্রশ্ন করলেন, আচ্ছা তোমার কোনো মেয়ে বন্ধু নেই? তাদের সঙ্গে ডেটিং করোনা? আমি মুখ তুলে বললাম, মেয়ে বন্ধুতো কলেজেই অনেক আছে। কিন্তু আমি কখনও কোনো মেয়েকে নিয়ে কলেজের বাইরে যাই নি। -সে কী? তোমাদের বয়সের ছেলেমেয়েরা তো আজকাল ইন্টারকোর্স করে। তারপর বন্ধুদের কাছে এসে গর্ব করে ডিটেলসে সব বর্ণনা দেয়। তুমি এখনও কোনো মেয়ের সাথেই ইন্টারকোর্স করোনি? আমি ঘাড় নেড়ে ওনাকে বললাম, না সে সুযোগ হয়নি, আর আমার ইচ্ছাও করেনি। দেখলাম উনি আমার দিকে তাকিয়ে হাসছেন। বললেন, বুঝেছি, তুমি মেয়েদের কাছে বেইজ্জত হওয়ার ভয়ে নিজেকে গুটিয়ে রেখেছ। বললাম, না তা কেন? তাহলে মাষ্টারবেট করো কেন? মাষ্টারবেট? আপনি জানেন? হ্যাঁ, জানি তো। আমার কেমন আবোল তাবোলের মতন জট পাকিয়ে যাচ্ছিল মাথায়। ভেবেই কূলকিনারা পাচ্ছিলাম না যে মাষ্টারবেটের কথা সোনালী ম্যাডাম জানল কি করে? আমি তো ওটা লুকিয়ে চুরিয়েই করি। তাহলে উনি? আমাকে এবার উনি বেশ টোন করে কথা বলতে লাগলেন। সোনালী ম্যাডাম বললেন, আসলে তুমি এখনও অনেক নাদান। মেয়েদের মতন সেক্সলাইফের রহস্য এখনও ভালো করে তোমার জানা হয় নি। মেয়েদের কি করে তুষ্ট করতে হয় তোমার সে সন্মন্ধে কোনো ধারনাই নেই। তোমাকে যদি কেউ আনাড়ী বলে উপহাস করে, তাচ্ছিল্য করে তারজন্য তুমি ভয় পাও। পাকা ওস্তাদ মেয়ে হলে, তার কাছে তোমাকে হার স্বীকার করতেই হবে। নরনারীর যৌন খেলার রহস্য, মজা, আনন্দ, এসব যদি নাই জানো তাহলে তাকে সুখ দেবে কি করে? সেক্সলাইফ এনজয় করতে হলে সেক্সের জ্ঞান তো থাকতেই হবে। এই যে আমি বুক খুলে বসে আছি। এখন তুমি আমায় ভালো করে দেখছই না। আর আমি যখন চলে যাব, তখন তুমি আবার শুয়ে শুয়ে মাষ্টারবেট করবে। আমার মুখ দিয়ে

কথা বেরোচ্ছিল না। সংক্ষিপ্ত বসনটুকু ছেড়ে সোনালী ম্যাডাম এখন উলঙ্গ। এমন নগ্ন শরীরে ওনাকে একবার বাথরুমের মধ্যে দেখেছিলাম, আর এখন চোখের সামনে দেখছি। শুনেছি, স্বর্গের অপ্সরী কিন্নরীদের শরীরের আকর্ষণে অনেক দেবতার পণপ্রতিজ্ঞা ধ্যান তপস্যার ইতি ঘটে যেত। জানি না সেইসব জীন পরীদের শরীর কতটা লোভনীয় ছিল, কিন্তু আজ যা আমি চোখের সামনে দেখছি, আমার যেন সমস্ত কল্পনাকে ছাপিয়ে যাচ্ছে। এমন নিখুঁত সুন্দর কোনো মেয়ের শরীর। যেন হতেই পারে না। উনি আমাকে একটু আগে তাচ্ছিল্য করছিলেন। আমি নাকি মেয়েদের সাথে সেক্স করতে ভয় পাই? ইচ্ছে হচ্ছিল আসল খেলার মহড়াটা ওনাকে এবার দেখিয়েই দিই। সোনালী ম্যাডামের নগ্ন স্তনযুগল দেখতে দেখতে আমি পেনিসে হাত দিলাম। দেখলাম ওটা নিজ মূর্তি ধারণ করছে আসতে আসতে। এতক্ষণ দিব্বি লক্ষ্মী ছেলের মতন শুয়েছিলো। এবার আসল চেহারায় বড় হচ্ছে। আমি সোনালী ম্যাডামকে এবার দেখিয়ে দেখিয়েই লিঙ্গটা নাড়াচাড়া করতে লাগলাম। পেনিসটা দারুন শক্ত হয়ে একেবারে ডান্ডা হয়ে গেল। আমি এবার একহাতে লিঙ্গটা ধরে, আর একহাতে সোনালী ম্যাডামের একটা স্তন ধরে বোঁটাটাকে টপ করে মুখে পুরে নিয়ে প্রবল ভাবে চুষতে লাগলাম। সোনালী ম্যাডাম মুখ দিয়ে আওয়াজ করলেন আঃ। বললেন-বাঃ দারুন শুরু করেছ তো? যেন এক রঙিন নেশায় মশগুল হয়ে ওর বুকের উষ্ন উত্তাপে নিষিক্ত হচ্ছি। আমাকে এবার উনি চুলে হাত বোলাতে বোলাতে ওনার স্তনের বোঁটাটা আরো ভালো করে চোষাতে লাগলেন। আমি বোঁটাটকে জিভের মধ্যে নিয়ে খেলছিলাম, আর সেই সাথে লিঙ্গটাকেও ভালো করে হাতে ধরে কচলাচ্ছিলাম। সোনালী ম্যাডাম আমার ঐ লিঙ্গ কচলানো দেখে, এবার আমার পেনিস চোষার আবদার করে বসলেন। বললেন, আমি তোমার ওটা চুষব। উনি আমার পায়ের কাছে বসে পেনিসের মাথাটা জিভ দিয়ে চাটতে শুরু করলেন। মনে হলো সারা শরীরে এবার কারেন্ট লাগছে। এমন অভিজ্ঞতা আগে কখনও হয় নি। এমন ভাবে আমার লিঙ্গটা মুখে পুরে নিয়ে উনি চুষতে শুরু করলেন, মনে হলো আমাকে সুখের রাজ্যে উনি ভাসিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। আমাকে অবাক করে সোনালী ম্যাডাম একটা কথা বললেন, -তোমরা তো ছেলেরা বন্ধুদের সামনেই মাষ্টারবেট করো। বন্ধুদের দিয়েও মাষ্টারবেট করিয়ে নাও। এখন তো ছেলেরাই ছেলেদের পেনিস সাক করে শুনেছি। আমাকে আর একটু কো-অপারেট করো, দেখ আমি তোমাকে কেমন আনন্দের স্বর্গে পৌঁছে দিচ্ছি। সোনালী ম্যাডাম আমার মোটা পেনিসটার প্রায় অর্ধেকটা মুখের ভেতর পুরে নিয়ে, আমি যেমন হাত দিয়ে খেঁচতে থাকি সেইভাবে মুখটাকে নামিয়ে উঠিয়ে খেঁচতে লাগল। ঐভাবে আমার লিঙ্গচোষণ দেখে আমার দেহমনে অন্য এক চরম পুলকের আনন্দে উদ্বেল হতে লাগল। দেখলাম ওনার মুখটা তখন আমার লিঙ্গ নিয়ে এক উন্মত্ত খেলায় মত্ত হয়ে উঠেছে। যেন আমি আমার মধ্যে আর নেই। সোনালী ম্যাডাম, শুধু আমার লিঙ্গটাই নয়। আমার সমগ্র চেতনাটাকেই গিলে ফেলেছে। ওনার সত্তার মধ্যে আমি ক্রমশ হারিয়ে যাচ্ছি। রতি রঙ্গ যখন শেষ হলো তখন ওনার মুখ ভরে গেল আমার বীর্যে। আমি দেখছি সোনালী ম্যাডামের মুখে কি অপরূপ প্রশান্তি। অকস্মাৎই আমার ঘুমটা গেল ভেঙে। এ আবার কি হলো? ওফঃ মহিলাতো আমার পিছু ছাড়ছেন না দেখছি। সবসময় সোনালী ম্যাডামের কথা চিন্তা করে আমার এই হাল হয়েছে। জেগেও দেখছি, ঘুমিয়েও দেখছি। আর পারা যাচ্ছে না। এবার থেকে আমাকে সোনালী ম্যাডামের কথাটা চিন্তা করা বন্ধ করতে হবে। নইলে এ রোগ সারবে না। এমন একটা স্বপ্ন দেখেছি যে মাথাটা বন বন করে ঘুরছে। ভাগ্যিস ওটা স্বপ্ন। স্বপ্নটা যদি সত্যি হতো? তারপর আবার ভাবলাম, স্বপ্ন তো সত্যিও হয়। তাহলে কি? ৩ আমার আর সোনালী ম্যাডামের ফ্ল্যাটে যাওয়ার সাহস হলো না। কলেজে গিয়ে একদম লাস্ট বেঞ্চে বসলাম। মুখ নিচু করে টিচারদের লেকচার শুনছিলাম। একটু পরেই সোনালী ম্যাডাম আমাদের বায়োলজির ক্লাস নেবেন। আমার তার আগে থেকেই বুকের ভেতরটা কেমন দুরুদুরু করতে শুরু করলো। ম্যাডাম যদি ক্লাসে এসে আমাকে দেখতে না পায় তাহলেই বোধহয় ভালো হবে। আমি চেষ্টা করছিলাম অন্যদের আড়ালে আরো ভালো করে মুখ লুকোবার। যাতে ক্লাসের মধ্যে সোনালী ম্যাডাম আমার অস্তিত্ব বুঝতে না পারে। যথারিতী বায়োলজির ক্লাস শুরু হলো। সোনালা ম্যাডাম আমাদের সবাইকে পড়াচ্ছেন। আমি চোখ বন্ধ করে মুখ নীচু করে বসে রয়েছি। হঠাৎ দেখলাম, আমার পাশের ক্লাসমেটটা পেন দিয়ে আমার পেটে খোঁচা মারছে। মুখ তুলে তাকাতেই ও বললো, এই তোকে ম্যাম ডাকছে? কে? সোনালী ম্যাম ডাকছে। সোনালী ম্যাম? আমার বুকের ভেতরটা ধড়াস করে উঠল। সর্বনাশ করেছে। উনি তারমানে আমাকে দেখে ফেলেছেন। আশ্চর্য ম্যাম কিন্তু সবার সামনে আমাকে কোনো কটু কথাই বললেন না। উল্টে জিজ্ঞেস করলেন, এতদিন কলেজে আসনি কেন তুমি? ফিরোজকে তো তোমার কাছে পাঠিয়েছিলাম, আজকেই আমার বাসায় গিয়ে আমার সাথে দেখা করবে। বুঝেছ? আমি বোকার মত ঘাড় নেড়ে বললাম, আচ্ছা। সবার সামনে ম্যাম আমাকে বাড়ীতে যেতে বললেন, আমার মুখটা কেমন লজ্জায় লাল হয়ে গেল। ক্লাসের শেষে আমি লাইব্রেরী রুমে গিয়ে বসেছি। একটা বইয়ের পাতা উল্টে পাল্টে দেখছি। এমন সময় হঠাৎ সোনালী ম্যাম ওখানেও প্রবেশ করলেন। আমি কেমন হকচকিয়ে গেলাম। ও তুমি এখানে বসে আছ? আর আমি তোমাকে সারা কলেজ খুঁজে বেড়াচ্ছি। চল আমার সাথে। আমি বললাম, কোথায়? কেন আমার ফ্ল্যাটে। এখনই? হ্যাঁ। কলেজ তো শেষ। কেন তোমার আবার কাউকে টাইম দেওয়া আছে না কি? টাইম? নাতো। আমার তো গার্লফ্রেন্ড নেই। সোনালী ম্যামকে দেখি আমার কথা শুনে মুচকী মুচকী হাসছেন। এবার আমার হাতটা ধরে উনি আমাকে টানাটানি করতে শুরু করে দিলেন।-চলো না তাড়াতাড়ি। তোমার সাথে অনেক দরকারী কথা আছে। দরকারী কথা? আমি আঁতকে উঠলাম।

বাড়ীতে ছল করে ডেকে নিয়ে যাচ্ছে। তারপর আমাকে নিয়ে গিয়ে পেটাবে নাকি? সেদিন যা ভুল করে ফেলেছি। বাথরুমের আতঙ্ক। এখনও মন থেকে যাচ্ছে না। আমি হাত জোড় করে ওনাকে মিনতি করে বললাম, ম্যাম আমাকে ক্ষমা করে দেবেন। আমি সেদিন খুব ভুল করে ফেলেছি। আশ্চর্য,সোনালী ম্যাম আমাকে অবাক করে বললেন-কিসের ভুল? তোমার তো কোনো ভুল নেই। দোষটা তো আমার। ভুল তুমি করতে যাবে কেন? আমি তোমাকে সহজ করে দেওয়ার চেষ্টা করছি, আর তুমি সহজ হতে পারছ না। দেখোতো, বিনা দোষে তুমি সাতদিন কলেজেই আসনি। এতে আমার কি খারাপ লাগছে না বলো? এই জন্যই বলছি, তুমি আমার ফ্ল্যাটে চলো। আমি তোমাকে সত্যি ব্যাপারটা কি, সব খুলে বলবো। সোনালী ম্যাডামের কথা শুনে আমি বেশ ভরসা পেলাম এবার। ওনাকে রিকোয়েষ্ট করে এবার বললাম, ম্যাম আপনি আমাকে পড়াবেন তো? অফকোর্স। তোমাকে পড়াবো না মানে? তুমি তো আমার কাছে টিচিং নেবে বলেই এসেছিলে। মনে নেই? শুধু শুধু মনে একটা পাপ নিয়ে বাড়ীতে মন খারাপ করে বসেছিলে। এখন চলো আমার সাথে। আর দেরী নয়। তাড়াতাড়ি। কুইক। অগত্যা আমাকে সোনালী ম্যাডামের সাথে সাথেই ওনার ফ্ল্যাটে যেতে হলো। আজ থেকে আবার লারনিং শুরু হবে। কিন্তু এবার থেকে আমি দৃঢ়প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়েছি, আর কিছুতেই সোনালী ম্যাডামকে নিয়ে ওসব ছাইপাস আমি ভাববো না। ওনাকে আমি শ্রদ্ধার চোখেই দেখব। যেমন দেখে বাকীরা সবাই। ফ্ল্যাটে ঢুকেই সোনালী ম্যাম আমাকে বললেন, তুমি একটু বসো। আমি ড্রেসটা চেঞ্জ করে আসছি। বলে উনি পাশের ঘরটায় চলে গেলেন। আগের দিনটার মতোই চুপচাপ আমি ঘরের একটা কোনায় বসে রইলাম। খেয়াল করলাম, যে কাজের বউটাকে আমি আগের দিন দেখেছিলাম, সে আজকে নেই। সোনালী ম্যাডাম বোধহয় রাগের চোটে ওকে তাড়িয়ে দিয়েছেন। আমার জন্য বেচারীর চাকরিটাও গেলো। সেদিন ঐ বউটাই না জেনেবুঝে আমাকে বাথরুমে পাঠিয়েছিল। আর তারপরে আমি সোনালী ম্যামকে উলঙ্গ অবস্থায় দেখে ফেলেছি। একটু পরে টিচার সোনালী ড্রেস চেঞ্জ করে আবার এই ঘরে এসে ঢুকলেন। এবার ওনার পরণে যে ড্রেসটা আমি দেখলাম, তাতে রীতিমতন আমি চমকে উঠলাম। গায়ে কালো রঙের একটা স্যান্ডো গেঞ্জী আর কোমরে ঘাগরা টাইপের গাউন। কালো ফিতের স্যান্ডো গেঞ্জীতে সোনালী ম্যাডামের রূপ ঝিলিক মারছে। দুধে আলতা চকচকে গায়ের মসৃণতা। স্তনবাহার যেন গেঞ্জীর মধ্যে দিয়ে লুটিয়ে পড়ছে। বেশ নিটোল বাহূমূল। গাউনের নীচে এলো উরু, হাঁটু, নরম আলতা রং পা দুটো বার করে আবার আমার সামনে বসলেন। ম্যাডামের অবিন্যস্ত খোলা চুল ঘাড়ের ওপর লটকে রয়েছে। হাসি ছড়ানো বিদ্যুত আবার ঠোঁটে ঝুলছে। চোখের পলক তুলে আমাকে বললেন, আমাকে দেখছ? প্রাণভরে দেখো। তোমাকে দেখানোর জন্যই তো এই সাজবহর। উরেব্বাস, আমি যেন চোখের সামনেই আবার স্বপ্নটাকে নতুন করে দেখছি। এমন খোলস খোলা এলো গা টা আমাকে দেখাচ্ছে কেন? কি ব্যাপারটা কি? হঠাৎ এবার আমার একটু কাছে সরে এসে ম্যাডাম বললেন, ঘরে ফ্যান ঘুরছে। দোতলা ফ্ল্যাটে জানলা দিয়ে প্রকৃতির বাতাস এমন হূমড়ি খেয়ে পড়ছে, তবু তুমি এত ঘামছ কেন? পকেট থেকে একটা রুমাল বার করে আমি মুখটা মুছছিলাম। সোনালী ম্যাডাম বললেন, বুঝেছি, তুমি আমার রূপ যৌবন দেখে দেহে মনে খুব তেতে উঠেছ। তাই না? আমার কেমন যেন সন্দেহ হতে লাগলো। ম্যাম, হঠাৎ এরকম আচরণ করছেন কেন? আমাকে ফাঁদে ফেলবার পরিকল্পনা করে নিয়েছে না কি? সেদিনের ঐ বাথরুমের কেলেঙ্কারীটা এখনও ভুলতে পারছেন না। আমাকে নতুন করে পরীক্ষা করছেন? কিন্তু উনি নিজেই তো আমাকে একটু আগে বললেন যে আমার কোনো দোষ নেই। আমি পুরো চুপসে যাচ্ছিলাম। ওনার কথাগুলো এমনই রসে ভেজা যে আমার ভেতরে পুলকটাও ভালো মতন জেগে উঠছিল। দেহের রক্তটা হঠাৎ ই টগবগ করে ফুটতে লাগলো, যখন দেখলাম, উনি আমার সামনেই একটা হাঁটুর ওপর আর একটা হাঁটু তুললেন। এটা যেন কামের ইঙ্গিত বলেই মনে হলো। আমি সঙ্গে সঙ্গে মাথাটা নীচু করে ফেললাম। প্রতিজ্ঞা করেছি, ম্যাডামকে নিয়ে খারাপ কিছু ভাববো না। আজ থেকে নিজেকে পুরো পাল্টে ফেলেছি। চোখের সামনে ওরকম দৃশ্য দেখার পরও আমি নিজেকে সংযত করে রইলাম। ম্যাডাম বললেন, তুমি দেখছি আমাকে দেখে নার্ভাস হয়ে যাচ্ছ। আরে বাবা, বাড়ীতে তো আমি এমন পোষাক পড়েই থাকি। তাকাও একটু আমার দিকে। লজ্জা পাচ্ছো কেন? আমি মুখটা অতি কষ্ট করে তুললাম, সোনালী ম্যাম বললেন, আমি জানি তুমি খুব ভালো ছেলে। সেদিন তুমি যে আমাকে ওভাবে দেখে লজ্জা পেয়েছিলে, তারজন্য তোমার কোনো দোষ নেই, আমি বলেছি তো। আসলে আমার বাথরুমের ছিটকিনিটাই খারাপ হয়ে গেছে। কদিন ধরে সারাবার লোক ডেকেও পাচ্ছি না। আমি বাথরুমে গেছি কাজের লোকটাও জানত না। দরজাটা ভেতর থেকে লাগাতেও পারিনি। আর তুমি সেইসময় গিয়ে হাজির। খুব খারাপ লেগেছে না? ম্যাডামকে নগ্ন অবস্থায় দেখে? আমার খুব লজ্জা পাচ্ছিলো। ম্যাডামের কথার জবাব দিতে পারছিলাম না। পুরোনো প্রসঙ্গটা টেনে আনছেন, এর উত্তরে আমার কি বা বলার আছে? সোনালী ম্যাম বললেন, ভাবছ, পড়তে এসে মহা ঝেমেলায় পড়েছি। ম্যাডাম পুরোনো কথা তুলে আমাকে লজ্জা দিচ্ছেন। এখন আমি কি করি? তাই তো? -আপনি আমার দোষ দেখেননি, সেটাই আমার কাছে বড় কথা। আপনার কাজের বউটা না বললে আমি বাথরুমের ধারে কাছেও যেতাম না। কি লজ্জায় আমিও পড়েগেছি, আপনি বলুন তো। নইলে একসপ্তাহ কলেজ কামাই করে বাড়ীতে বসে থাকি? -তুমি কলেজে না আসলে, আমি তোমার বাড়ীতেই চলে যেতাম। ভীষন একটা অস্বস্তি হচ্ছিল। ম্যাডামের এই গায়ে পড়া ভাবটা আমি ঠিক বুঝে উঠতে পারছিলাম না। হঠাৎ আমার প্রতি আকর্ষিত হওয়াটর কারণটা কি? এখনও অবধি পড়া নিয়ে কোনো আলোচনা হয় নি। এসে অবধি তখন থেকে সেই পুরোনো ঘটনা নিয়ে চর্চা চলছে। তাই বললাম, ম্যাম আপনি কি আজ আমাকে পড়াবেন? সঙ্গে সঙ্গে উনি বললেন, না আজ তোমাকে নিয়ে আমি শুধু আনন্দ করবো। আনন্দ করবেন মানে? আনন্দ মানে আনন্দ। সেভাবে নারী-পুরুষ একে অপরকে নিয়ে আনন্দ করে সেই আনন্দ। আজ আমাদের কারুরই একা একা আনন্দ করার দিন নয়। আমরা একে অপরকে নিয়ে আনন্দ করবো। আমার মনে মনে সন্দেহের দানাটা আরো বেশী করে বাধতে লাগলো। একা একা আনন্দ করার মানে উনি কি মাষ্টারবেট করাটাকে মনে করাচ্ছেন? এসব উনি জানলেন কেমন করে? আমি যা স্বপ্নে দেখেছি, এতো হূবহূ তার সাথে মিলে যাচ্ছে। ম্যাম কেন আমার সাথে এরকম আচরণ করছেন? হঠাৎ খেয়াল হলো, শুনেছি উনি ডিভোর্সী। একা একা থাকেন, তাই বলেই কি আমার সাথে ভাব জমাতে চাইছেন? আমার যেন ওনার কন্ঠস্বর চিনতেই কষ্ট হচ্ছে। কলেজে একরকম আর বাড়ীতে আরেক রকম, একি দেখছি আমি? হঠাৎ সোনালী ম্যাডাম এমন একটা কথা বললেন, পরিবেশটাই কেমন পাল্টে গেল। আমাকে বললেন, তোমার এখন বয়স কত? বললাম, আঠারো। উনি বললেন, জীবনে কখনও দূঃখ পেয়েছ? আমি বললাম, পেয়েছি একবার। মা যখন মারা গিয়েছিলেন তখন। -আমি ঐ দূঃখের কথা বলছি না। -তাহলে? -আমি কোনো সঙ্গি বা সঙ্গিনীর কাছ থেকে দূঃখ পাওয়ার কথা বলছি। ওনার এই কথা শুনে আমি বেশ অবাক হলাম। সোনালী ম্যামকে বললাম, আমার তো কোনো সঙ্গিনী নেই। তাই দূঃখ পাব কেমন করে? হঠাৎ এ প্রশ্ন করলেন? আমি সঙ্কোচ না নিয়েই বললাম, কারো একান্ত ব্যক্তিগত কথা জোড় করে জানতে চাওয়া উচিৎ নয়। তবুও আপনি যদি নিজে থেকে জানাতে চান, তাহলে শুনবো। দেখলাম, সোনালী ম্যাডামের চোখটা একটু ছলছল করছে। বললেন, তোমার কি মনে হয়, আমার বয়স কত? -জানি না ম্যাম। -তিরিশটা বসন্ত পার করে এসেছি আমি। এই বয়সের মেয়েরা ছেলেমানুষ করতে ব্যস্ত থাকে। অথচ আমার জীবনটা দেখো, সারাদিন রাত ছাত্রছাত্রী পড়ানো, আর বই নিয়েই আমার সময় কাটে। আমার জীবনটা কত বোরিং হয়ে গেছে। বললাম, ম্যাম কিছু যদি মনে না করেন, আমাকে খুলেই বলুন না আপনার দূঃখটা কি? উনি বললেন, তোমাকে আমার খুব ভালো ছেলে বলেই মনে হয়েছে। তোমাকে আমার জীবনের কথা বলতে পারি একসর্তে। এটা কিন্তু কাউকে বলা যাবে না। আমি ম্যামকে কথা দিলাম। বললাম, আপনি নিশ্চিন্তে থাকুন। আমি কাউকে কিছু বলবো না। সোনালী ম্যাডাম আমাকে ওনার জীবনের কাহিনী শোনাতে শুরু করলেন, আর আমি মন দিয়ে শুনতে লাগলাম। বললেন, তুমি এখন অ্যাডাল্ট। বড় হয়েছ। আর আমার এই দূঃখের কাহিনীর কথাটা অ্যাডাল্ট না হলে কাউকে বলা যায় না। তোমাকে সব ঘটনাই বলছি, আমার জীবনে কি এমন হয়েছিল। আজ যে সোনালী ম্যামকে তুমি একা নিঃসঙ্গ থাকতে দেখছ, সে কিন্তু একদিন একা ছিল না। তোমার সোনালী ম্যাডাম বিয়ে করেছিল একজনকে। সে সুপুরষ। লম্বা চওড়া স্বাস্থবান লোক। আমাকে তার খুব মনে ধরেছিল। আমি বাবা মার অমতেই তাকে বিয়ে করেছিলাম। কিন্তু- বলতে বলতে উনি থেমে গেলেন। বললাম-থামলেন কেন ম্যাডাম। বিয়ে করেছিলেন, তারপর? -হ্যাঁ, সে ছিল আমার দুমাসের স্বামী। বাবা মায়ের পছন্দ করা পাত্র নয়। আমি নিজেই পছন্দ করে বিয়ে করেছিলাম তাকে। আলাপ হয়েছিল একটা স্পোর্টস ক্লাবে। হ্যান্ডসাম, আমার থেকে কয়েক বছরের বড় হবে। ওর মেয়েভুলোনো কথায় আমি মুগ্ধ হয়ে গেছিলাম। ছেলেটি বাঙালি ছিল না। ও ছিল খুব ভালো স্পোর্টসম্যান, ভালো পোলো খেলত। ঘোড়ায় চড়ার ক্ষমতাও ছিল অসামান্য। মটর রেসিং এ ছিল বেশ পটু। বাবা বলেছিলেন, তুই শান্ত শিষ্ট মেয়ে। লেখাপড়া নিয়ে থাকিস। ওরকম একটা স্পোর্টসম্যানের সঙ্গে মানাতে পারবি? আমি তখন ওর প্রেমে মোহাচ্ছন্ন। বাবাকে বোঝালাম,খেলাধূলা নিয়ে যারা থাকে তারাই তো ভালো। পলিটিকস্ এর ময়লা ঘাঁটে না। পাঁচ মিনিটের আলাপেই আপন করে নিতে পারে অন্যকে। ছেলেটিকে দেখে মনে হয়, নিজের স্বার্থ বড় করে দেখে না। মানুষটি ভালো। আমি এমন ছেলেকেই বিয়ে করবো। একটা ডিনার পার্টিতে ও আমাকে ইনভাইট করেছিল। দেখি ওর অনেক মেয়েবন্ধু ভীড় করছিল আমাদের টেবিলের সামনে এসে। ওকে দেখে আমি মুগ্ধ হয়ে যাচ্ছিলাম। যতই মেয়েরা ওকে ঘিরে ধরতে চাইছিল ও ততই ওদের কাছে হাতজোড় করে ক্ষমা চেয়ে নিয়ে তাদের তৎক্ষণাৎ বিদায় করে দিচ্ছিল। আমি নিজেকে ভীষন সন্মানিত বোধ করছিলাম সে রাতে। আমাকে তারপর ও যখন প্রপোজ করল, আমি না করতে পারিনি। বাবা এরপরে আমাকে আর অমত করেননি। শুধু আমাকে একটু সতর্ক করে দিয়েছিলেন। একটা খেলোয়াড় মানুষের সঙ্গে আমি মানিয়ে নিতে পারব কিনা-সেটাই ছিল ওনার চিন্তা। শেষ পর্যন্ত বাবার আশঙ্কাই সত্যি হয়েছিল। দুমাসের মাথায় আমি স্বামীর ঘর ছেড়ে বাবার কাছেই ফিরে এলাম। আমি ভীষন মর্মাহত হয়ে গেছিলাম। অবাক হয়ে সোনালী ম্যামকে জিজ্ঞাসা করলাম, এই এত অল্প সময়ের মধ্যে কি এমন ঘটেছিল, যে ওরকম একটা সিদ্ধান্ত আপনাকে নিতে হয়েছিল? উনি বললেন, আসলে লোকটা ছিল একটা লোফার। নতুন নতুন মেয়ে দেখলেই তাকে পটিয়ে কব্জা করে ফেলত। আর মেয়ে যদি সে ধরনের মেয়ে হয়-যারা চাইলেই সাথে সাথে বিছানায় শুয়ে পড়ে, তাদেরকে দুচারদিন ভোগ করে আস্তাকুড়েতে ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে আবার নতুন শিকারের সন্ধানে অন্য নারীর খোঁজ করে বেড়াত। আর যে মেয়ে অত সহজে ঐ শর্তে রাজী হতে চাইত না, তাকে মন্দিরে নিয়ে গিয়ে বিয়ের প্রহসন করতেও পিছপা হতো না। এই ধরনের ফাঁদেই আমি পড়েছিলাম। আমার আগেও আরো তিনটি সম্ভ্রান্ত ঘরের মেয়েকে সে নামকে-ওয়াস্তে বিয়ে করে তাদের সর্বস্ব লুটে নিয়ে ডিভোর্স করেছিল। গত দশ বছরে সে আরো গোটা পাঁচেক মেয়েকে ঠিক একই কায়দায় টোপ দিয়ে বিয়ের প্রহসন করে সর্বনাশ করেছে। এইসব জানা সত্ত্বেও আমাদের এই উচ্চবিত্ত পরিবারের মেয়েদের অনেকেই সর্বদা তাকে ঘিরে থাকত। এদের বেশিরভাগই বিবাহিত মহিলা। তাদের স্বামীরা পার্টি ক্লাব করে বেড়ায়। ঘরের বউকে ফেলে অন্য মেয়েদের পেছনে ধাওয়া করে। এইসব নারীদের ওপর লোকটার তেমন আকর্ষণ ছিল না। একটা টেলিফোনের ইশারাতেই তারা এসে হাজির হত তার বিছানায়। আমি হাঁ হয়ে শুনছিলাম সোনালী ম্যামের হতাশার কাহিনী। বললাম, বুঝতে পেরেছি, লোকটা ছিল চরিত্রহীন, ধড়িবাজ, লম্পট, কামুক। কিন্তু আপনি কি হাতেনাতে প্রমাণ পেয়েছিলেন? -হ্যাঁ। -কিভাবে? সোনালী ম্যাডাম বললেন, লোকটা চরিত্রহীন, ধড়িবাজ অবশ্যই ছিল, ভয়ঙ্কর কামার্তও ছিল। বিয়ের মাস খানেক পর থেকেই আমি দেখেছি, সে কারণে অকারণে যখন তখন বাড়ী চলে আসত এবং আমাকে টেনে নিয়ে যেত বিছানায়। আমাকে মিষ্টি কথায় সবসময় ভুলিয়ে রাখত। আমি মোহগ্রস্ত ছিলাম, আগেই বলেছি। ভাবতাম, আমাকে ও বোধহয় এতটাই ভালোবাসে যে চোখের আড়াল সহ্য করতে পারে না। সময় অসময়ে ছুটে চলে আসে আমার কাছে। কিন্তু পরে বুঝেছিলাম, পুরোটাই তার নকশা। আমার শরীরটাকে ভোগ করাই উগ্র বাসনা তার। কিন্তু ওর কোনো ক্ষমতাই ছিল না। -ক্ষমতা ছিল না মানে? আমি বোকার মতন অবাক হয়ে প্রশ্ন করলাম। -ক্ষমতা মানে পুরুষের যেটা থাকে। পুরুষালি ক্ষমতা। ইন্টারকোর্স করার সময় আমার শরীর গরম হওয়ার আগেই দেখতাম, ওর বীর্যপাত ঘটে গেছে। দুতিন মিনিটে কাজ শেষ করেই ও আবার জামাপ্যান্ট গলিয়ে বেরিয়ে যেত। আমার ভীষন খারাপ লাগত। আমি সঙ্গম সহবাসের জন্য তৈরী। অথচ ও আমাকে সুখ না দিয়েই উঠে পড়ত। সোনালী ম্যামের কথা শুনে আমার চোখ মুখ লাল হয়ে যাচ্ছিল। এত সহজ ভাবে উনি কথাগুলো বলছিলেন, আমি অবাক না হয়ে থাকতে পারছিলাম না। ম্যাম বলতে লাগলেন, ও কখনই আমার ওপরে দুতিন মিনিটের বেশী থাকতে পারেনি। আমার কোমরে ও দুচারটে ঠাপও দিতে পারে নি। ভাবো আমার শরীরটা তাহলে কি করে গরম হবে? আমার সুখ স্বাদ নিয়ে ও কোনোরকম ভাবনা চিন্তা করত না। রাত্রে ডিনার শেষ করে যখন বিছানায় আসতাম, তখন দেখতাম, লোকটা ন্যাংটো অবস্থায় বিছানায় চিৎ হয়ে শুয়ে এক হাতে পেনিস মুঠো করে ধরে, অন্যহাতে সিগারেট ধরে স্মোক করছে। আমাকে তৈরী হওয়ার সময় টুকুও দিতে চাইত না। কাম অন ডার্লিং এই বলে প্রায় টেনে হিঁচড়ে বিছানায় শোয়াত আমাকে। আদর সোহাগ শৃঙ্গার এসব ওর ডিকশনারিতে ছিলই না কোনোদিন। তার ছিটেফোটা স্বাদও আমি তার কাছ থেকে পাইনি কখনও। তুমি জানতে চাইলে তাই তোমাকে বললাম, কেন আমি আমার স্বামীকে ছেড়ে চলে এসেছিলাম। সোনালী ম্যাম কাহিনীটা শেষ করে একটা দীর্ঘনিঃস্বাস ফেললেন। আমি বুঝলাম, ম্যাডামের তার মানে আসল সুখানুভূতিটাই হয় নি। যেটা মেয়েদের পুরুষের সঙ্গে করার সময় অনুভূত হয়। ছেলে মেয়ে দুজনেরই যখন পুলক জাগে তখনই সুখানুভূতিটা হয়। আমি তো এতদিন ধরে মাষ্টারবেট করেই দিন কাটাচ্ছি। এখন এর আসল মানেটা বুঝতে পারছি। সোনালী ম্যাম এবার আমাকে বললেন, এই তুমি আমার শোবার ঘরে যাবে? চল না। তোমার সাথে আরো কথা আছে। আমি রীতিমতন চমকে উঠলাম। হাওয়াটা মনে হচ্ছে সুবিধার নয়। মানে মানে কেটে পড়তে হবে। নইলে আমাকে নিয়ে আবার উনি কি করে বসবেন, তখন আমি আবার মুশকিলে পড়ে যাবে। ম্যাডামকে বললাম, ম্যাম আজকে বরং যাই। আমি না হয় অন্যদিন আসব। ম্যাম সঙ্গে সঙ্গে বললেন, না না তুমি যাবে না থাকো। আমার দরকার আছে। মনে মনে ভাবলাম, আমাকে দরকার? কিসের জন্য দরকার? আমাকে দিয়ে উনি কিছু করাতে চাইছেন নাকি? এতদিন আমি ওনার কথা চিন্তা করে করে নিজের শরীরটাকেই অস্থির করে ফেলেছিলাম। কোনোরকমে নিজেকে সামাল দিয়েছি, এবার উনি শুরু করলেন? কলেজে এত ছেলে থাকতে শেষে কিনা আমাকেই মনে ধরল? আমি এখন এখান থেকে পালাই কি করে? বেগতিক দেখে আমি ওনাকে কাকুতি মিনতি করাও শুরু করেদিলাম। কিন্তু উনি আমার কথা শুনলেন না। উল্টে আমার গায়ে হাত দিলেন। সঙ্গে সঙ্গে আমার সারা শরীরে একটা শিহরণ খেলে গেল। আমার প্যান্টের চেনের দিকে উনি তাকিয়ে ছিলেন। মনে হলো আমার এই দুর্লভ বস্তুটি অর্থাৎ পেনিসটির স্বাদ পাওয়ার জন্য উনি অস্থির হয়ে উঠেছেন। আমার প্রতি ওনার এত আগ্রহ, আমাকে প্রায় পাগল করে দিতে লাগল। যৌবনের জোয়ার যবে থেকে শরীর তোলপাড় করতে শুরু করেছে, তবে থেকেই সুন্দরী যুবতীদের প্রতি আমার আকর্ষন বেড়েই গেছে। অথচ আমি তাদের সাথে মিশতে, তাদের স্পর্ষ পেতে, মনে প্রাণে চঞ্চল হয়ে উঠিনি। নারীকে রহস্যময়ী রমণী বলে যখন থেকে ভাবতে শুরু করেছি, তখন থেকেই মাষ্টারবেশনের ইচ্ছা আমার বেড়ে গেছে। কোনোদিন কোনো নারীর সাথে ইন্টারকোর্স করিনি। কারণ আমার মনে হয়েছে হস্তমৈথুন এবং নারীর সাথে সঙ্গম, এর উদ্দেশ্য ও ফলাফল একই। কিন্তু আজ এমন একটা সুযোগ আসার পরেও সোনালী ম্যামের শরীরটাকে কেন আমি বেছে নিতে পারছি না চরম পুলক পাওয়ার জন্য? আমি তো ওনাকে ভেবেই এতদিন হস্তমৈথুন করেছি। তবে কেন আসল শরীর স্পর্ষ দিতেই আমি কুকড়ে যাচ্ছি? উন্মত্ত হয়ে ওঠে একদল পুরুষ এই পুলক পাওয়ার জন্য। কিন্তু আমি কেন এই অভ্যাস ছাড়তে পারি না? সমাজে কি এর কোনো রীতি আছে? বরং ইন্টারকোর্সটাই তো নতুন অভিজ্ঞতা। কোনোদিন করে দেখিনি। যদি একবার সোনালী ম্যামের ওপর উপগত হওয়া যায়? যোনি-অঙ্গে উত্তেজিত শক্ত লিঙ্গ ঢুকিয়ে জোড়ে জোড়ে ঠাপ দিয়ে বীর্যপাত ঘটানো। নারীর নগ্ন শরীরের উত্তাপের সঙ্গে শরীরের আলিঙ্গন পাওয়ার শিহরণে রোমাঞ্চিত হওয়া। সোনালী ম্যাম আমাকে চাইছেন, অথচ আমি তার কোনো কদরই করছি না। একবার ভাবলাম, দূর ছাই, উনি যৌন সুখ পেলেন? না না পেলেন। এতে আমার কিসের মাথাব্যাথা? উনিতো নেগলেক্টেড। হয়তো আমার মতই মাষ্টারবেট করে যৌনযন্ত্রণা মেটায়। দেহের জ্বালা দেহে রেখেই ঘুমিয়ে পড়ে। বিয়ে যখন করেছিল, তখন নীল আকাশে পাখা মেলে ভাসছিল। এখন স্বামীও নেই, কেউ নেই তাই আমাকে পাকড়াও করেছেন। আমার সঙ্গে ওনার বয়সেরও যে বিস্তর ফারাক, সেটাও উনি ভুলে গেছেন। না এখানে থেকে কোনো কাজ নেই। আমি ওনার নাগাল থেকে নিজেকে প্রায় ছাড়িয়ে দৌড়ে ওনার ফ্ল্যাট ছেড়ে পালাবার উদ্যোগ নিলাম। সোনালী ম্যাম আমাকে পেছন থেকে বললেন-এই যেও না দাঁড়াও। এই শোনো। যেও না। আমাকে ছেড়ে যেও না। দাঁড়াও। ছুট্টে চলে এলাম নিজের বাড়ী। তখনও সোনালী ম্যামের পেছন থেকে ডাকটা আমার কানে বাজছিল। আমি যেন এক অদ্ভূত চিন্তায় ডুবে গেলাম। ৪ শরীরের ভেতরটা আমার ছটফট করছে। সোনালী ম্যাডামই আমাকে করাচ্ছে। উনাকে তাচ্ছিল্য করে আমি চলে এসেছি। ম্যামের প্রতি উদাসীনতা দেখিয়ে আমি যেন ভুল করেছি। কি এমন ক্ষতিটা হতো যদি আমি আর একটু সময় ওখানে থাকতাম? যাকে নিয়ে এত কান্ড, তাকেই অবজ্ঞা করে চলে এলাম? ম্যাম যে আমাকে ওনার দূঃখের কাহিনী শোনালেন, তাতে লাভ কি হলো। আমি যেন চরম স্বার্থপরতার পরিচয় দিয়ে ওনার কাছ থেকে পালিয়ে এলাম। নিজেকে ভীষন দোষী অপরাধী মনে হচ্ছিল। রাত্রিবেলা শুয়ে, কল্পনায় আর ম্যাডামকে চিন্তা করতে ইচ্ছে করছিল না। আমার যেন মাষ্টারবেট করার ইচ্ছাটাই চলে গেছে তখন। কলেজে গেলাম না। ফিরোজ এবার ফোন করে বললো, ম্যাম আজকেও তোর খোঁজ করেছেন। আমাকে জিজ্ঞাসা করছিলেন, তোর বাড়ীটা কোথায়? আমি বলে দিয়েছি। এরপরে যদি সোনালী ম্যাম আমার খোঁজে আমার বাড়ীতে এসেই হাজির হয়? উনাকে কি আটকাতে পারব তখন? হঠাৎ আমার মনে হলো, হস্তমৈথুন করতে করতে আমি যেন ক্লান্ত হয়ে পড়েছি। যৌবনের দোড়গোড়ায় এসে নারীর সঙ্গে সঙ্গম করতে কেন আমার আগ্রহ জাগছে না? নারীর সঙ্গে সঙ্গমে একটা আলাদা জাদু আছে, সেটা কেন ভাবছি না? কি একটা অভ্যাস করে ফেলেছি, যে ছাড়তেই পারছি না। আজ যদি মা বেঁচে থাকতেন, তাহলে আমার বিয়ে দিতেন। কোনো নারীর সাথে আমি তখন হয়ে উঠতাম একাত্ম। ভালবাসা, দেহদান,রতিসঙ্গমের ক্ষিধে তৃপ্তি, এটাই তো আমাদের সমাজের স্বীকৃত রীতিনীতি। তা না আমি কিনা শুধুই মাষ্টারবেট? আমার বন্ধুরা যারা ডেটিং করে, তারা বলেছিল, পুরুষের কাছে নারীদেহ সবসময়ই লোভনীয়। নারীর নরম, নধর শরীরের উত্তাপে সে রোমাঞ্চিত, নগ্ন শরীরের সঙ্গে শরীর লাগিয়ে এক রোমাঞ্চকর শিহরণ। তাকে কি না আমি পায়ে ঠেলে দিচ্ছি? মহিলা যখন আমায় দূঃখ করে সবই বলেছেন, তখন নিশ্চই তার যথার্থ সুখ হয়নি। আজ যদি আমি সেই সুখ ভাগাভাগি করে নিতে পারি, তাহলে ক্ষতি কি? ছাত্রী যদি শিক্ষকের সাথে সহবাস সন্মন্ধ গড়ে তুলতে পারে তাহলে আমি ছাত্র হয়ে শিক্ষিকার সাথে কেন তা পারব না? আমার মধ্যে অন্যমানুষটা এবার জন্ম নিয়ে ফেলেছে। চিন্তা করতে লাগলাম, আমি সোনালী ম্যামের সাথে জড়াজড়ি করে শুয়ে রয়েছি। ম্যামের সাথে চুম্বনে চুম্বনে আবদ্ধ হয়ে গেছি। ম্যাম আমাকে আদর করছেন, কি অনায়াসে আমাকে বলছেন, এই কর না একটু? যেন এক অসাধারণ সুন্দর রতি উপভোগ ক্রিয়াকান্ডের প্রস্তুতি নিচ্ছি দুজনে। ম্যাম শুয়ে শুয়েই পা দুটো তুলে দিয়েছেন আমার কোমরের ওপরে। সঙ্গমের জন্য তার রতিবাসনা প্রবল ভাবে জেগে উঠেছে। আর যোনীপথ প্রশস্ত করে আমাকে তিনি ভেতরে ঢোকার জন্য আহবান করছেন। বারবার মুখে বলছেন, এই আর দেরী নয় শুরু কর এবার। এখন তুমি আমার মধ্যে। আর তোমাকে নিয়ে আমি সুখের রাজত্বে। বুঝতে পারছি ম্যাম যেন আমার ভোগের জন্যই জন্মেছে, ওনার মনের মধ্যে কোনো সঙ্কোচ নেই। আমার ভেতরে ভেতরে একটা শক্তি তৈরী হচ্ছিল। মনে হলো ম্যামের প্রতি কামইচ্ছা প্রবলভাবে এসে গেছে শরীরে। আমি যদি ম্যামকে বিছানায় শুইয়ে নিয়ে তীব্র সঙ্গমে আবদ্ধ হই, কেউ রুখতে পারবে না আমাকে। আসক্তি জ্বরে সবকিছু চুড়মার করে দিতে ইচ্ছে করছে। পৃথিবীর কোনো বাধাই এখন আমার কাছে বাধা নয়। ইচ্ছে করলে আমি সব করতে পারি। ম্যাম যেটা চাইছে সেটা, এমন কি যদি না চায়, তাহলেও। ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখলাম, রাত্রি দশটা। এই রাত্রেও আমি ম্যামের ফ্ল্যাটের দিকে রওনা দিলাম এক দূঃসাহসিক মনোবাঞ্ছনা পূরনের উদ্দেশ্যে। সুখলাভের প্রবৃত্তি নিবৃত্ত করতে গিয়ে আত্মরতি অনেক হয়েছে, আর নয়। এবার আমাকে ঘাটতিগুলোকে পূরণ করতেই হবে। পাপ অপরাধ, অন্যায় এই শব্দগুলো অনেক সেঁটে দেওয়া হয়েছে জীবনে, এখন আমি কোনো কথাই আর শুনছি না। শারীরিক সম্পর্কের কুয়াশা ঘিরে অযথাই সমস্যা তৈরী হয়েছে মানুষের জীবনে। ম্যামের সাথে সম্পর্ক তৈরী করে আমি এবার এক নতুন দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করবো। রাস্তায় যেতে যেতে আমার শুধু একটা কথাই মনে হলো, ম্যামের মনের গহনে যে কামনা বাসনাটা মরচে পড়তে শুরু করেছে, আমি সেটাতেই এবার নতুন প্রাণ আনবো। ম্যামকে এবার আমি যৌনকষ্ট থেকে মুক্তি দেব। মাঝপথে প্রবল ভাবে বৃষ্টি এলো। আমার জামা, প্যান্ট সব ভিজে গেল। প্রবল বৃষ্টিতে ভিজতে ভিজতেও আমার উৎসাহে কোনো রকম ভাটা পড়ল না। কারন আমি মনে প্রাণে তখন কঠোর সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছি। আজ ঝড়বৃষ্টিও আটকাতে পারবে না আমাকে। ম্যাডামের ফ্ল্যাটের নীচে গিয়ে দাঁড়ালাম। বাইরে থেকে দেখলাম, ঘরে আলো জ্বলছে। তার মানে ম্যাম পড়াশুনো করছেন। আমি সিঁড়ি দিয়ে উঠতে লাগলাম। জামা, প্যান্ট তখন ভিজে একেবারে চপচপ করছে। কলিংবেল বাজানোর পর স্বয়ং ম্যাডামই এসে দরজা খুললেন। দেখলাম দরজার সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছেন, আমার অতি প্রিয় সোনালী ম্যাম। যেন আমারই অপেক্ষায়। -একি তুমি? এই বৃষ্টিতে। এমা একেবারে ভিজে গেছ দেখছি। এসো এসো, ভেতরে এসো। আমি ভেতরে ঢুকে ম্যামের দিকে তাকালাম, কথা বলতে পারছি না। ম্যামকে দেখছি ঐ একই রকম পোষাকে। আজকে যেন আগের দিনের থেকেও ভালো লাগছে। গেঞ্জীটা এমন ভাবে পড়েছে, অল্পবয়সী মেয়েরাও পাত্তা পাবে না সোনালী ম্যাডামের কাছে। আমাকে বললেন, তোমার মাথাটা আগে ভালো করে মুছে দিই। দাড়াও, আমি বাথরুম থেকে তোয়ালেটা নিয়ে আসছি। আমার পকেটের রুমালটাও বৃষ্টির জলে ভিজে গেছে। তবুও ওটা দিয়েই মাথাটা মুছতে চেষ্টা করলাম। সোনালী ম্যাডাম তোয়ালে নিয়ে এসে বললেন, অত ছোট জিনিষে কি আর মোছা হয়? এসো আমি তোয়ালে দিয়ে ভালো করে মুছে দিচ্ছি। কাছে এসে মাথার ওপর গোটা তোয়ালেটা দিয়ে আচ্ছাদন করে আমাকে যেন শরীরের আরো কাছে টেনে নিলেন। মাথাটা নিচু করতে বললেন। ওনার বুকের সাথে ঠেকে যাচ্ছিল মাথাটা। মাথার ওপর তোয়ালে শুদ্ধু সোনালী ম্যামের হাত ওঠানামা করছে। মাথা মুছতে মুছতে বললেন, দেখেছ? বৃষ্টিতে ভিজে পুরো চান হয়ে গেছ। এখন শার্টটাও খোলো দেখি, বৃষ্টির জল গায়ে বসে গেলে গেলে সর্দি ধরে যাবে। মনে হলো ওষুধ খেলে সর্দিও সেরে যাবে, কিন্তু যেভাবে কাম ধরেছে শরীরে, এ রোগের কোনো ওষুধ আছে কি? গায়ের ভিজে জামাটাও সোনালী ম্যাডাম হাত লাগিয়ে খুলতে লাগলেন। আঙুলের স্পর্ষ বোতামগুলোর ওপর একটা একটা করে পড়ছিল, আর আমার শরীরের মধ্যে দিয়ে তরঙ্গ বয়ে যাচ্ছিল। হেসে বললেন, মাও নেই। বউও নেই। বিয়ে না করলে তোমাকে দেখবে কে? একা একা থাকো। বাবাও কাছে নেই, কষ্ট হয় না? এতদিন তো কষ্ট পাইনি। একা একা বাড়ীতে থেকে বাথরুমের মধ্যে ঐ জিনিষটা করে সুখ পেয়েছি। কিন্তু যবে থেকে আপনাকে দেখেছি, আমি যেন এই কষ্ট লাঘব করতে পারছি না। কথাটা আমি বলছিলাম না। আমার মনের মধ্যে কথাটা আমাকে কেউ মনে করিয়ে দিচ্ছিল। ভাবছিলাম, এভাবে আর কতক্ষন? লক্ষ্মী ছেলের মত চুপচাপ দাড়িয়ে থাকব আর ম্যাডাম জামা খুলে আমাকে খালি গা করে দেবেন? এরপরে কি তাহলে প্যান্টটাও? ম্যাডাম যদি স্বপ্নের মত আমার পৌরুষকে হঠাৎই প্যান্ট খুলে মুখে নিয়ে চুষতে আরম্ভ করেন, তখন আমি কি করব? সাংঘাতিক কিছু ঘটার আগে আমিই কি জড়িয়ে ধরব ম্যাডামকে? না উনি যা করতে চাইছেন, সেটাই করতে দেব ওনাকে। আশ্চর্য ম্যাডাম কিন্তু এর মধ্যে একবারও জিজ্ঞেস করেনি, এত রাত্রে আমি কেন এসেছি? রাত বিরেতে বৃষ্টি মাথায় করে এসেছি। ওনার মুখে কোনো বিরক্তির ভাব নেই। মনে কোনো অসন্তোষ নেই, যেন খুশী মনে আদর আপ্যায়ন করছেন আমাকে। আমি মাঝরাত্রে এলেও ম্যাডাম বোধহয় না করবে না আমাকে। ম্যাডাম সত্যি কি চাইছেন? ম্যাডাম- আমার মুখ দিয়ে অস্ফুট স্বরে আওয়াজটা বেরিয়ে এলো। এবার সোজাসুজি ওনার চোখের দিকে তাকালাম। ম্যাডামের চোখের সাথে নিজের চোখকে আবদ্ধ করে ফেলেছি। আমার চোখের দৃষ্টিতে তখন ম্যাজিক। সেক্স ম্যাজিক। চেষ্টা করছি সেই দৃষ্টির মাধ্যমে ম্যাডামকে কিছু ম্যাসেজ দেওয়ার। আমি ম্যামকে বোঝানোর চেষ্টা করছি। ম্যাম আমি তো আপনার জন্যই এসেছি ম্যাম। আপনি আমাকে বারবার ডাকছেন। কেন ডাকছেন আমি জানি। আপনি আমাকে মনে প্রাণে পছন্দ করেন। আপনি চান আমাকে। এই চাওয়ার মধ্যে প্রেম ভালোবাসা ছাড়াও আছে শরীরি সুখ। আপনি আমাকে ছাড়া থাকতে পারবেন না। পারবো না আমিও। আপনাকে শেষ পর্যন্ত না পেলে আমি হয়তো মরেই যাব। যৌন উত্তেজনা নিবৃত্তির জন্য স্বেচ্ছায় গৃহীত এই আত্মরতিকে সম্বল করে আমি কতদিন বাঁচব। চাই না আর শুধু শুধু কেবল মাষ্টারবেট করতে। আমি শুধু আপনাকে চাই। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত আপনাকে চাই। শুধু কল্পনায় আপনাকে নিয়ে আমি বাঁচতে চাই না। বলতে বলতেও আমি যেন আটকে গেলাম। আমার গলার স্বর হঠাৎই আড়ষ্ট হয়ে গেছে। সোনালী ম্যাম আমার জামাটা পুরো খুলে হাতে নিয়ে দাড়িয়ে আছে আমার সামনে। আমার ম্যাসেজটা আর সোনালী ম্যামকে দেওয়া হলো না। রাগে ধিক্কারে নিজের ওপরই ক্ষুব্ধ হয়ে ম্যামের সামনে থেকে ছিটকে চলে এলাম, কিছুটা দূরে। ম্যাম ওখান থেকেই আমাকে জিজ্ঞাসা করলেন, কি হয়েছে বল? তুমি ওরকম করছ কেন? মুখ নিচু করে ফেললাম। ম্যাডাম ওভাবে দাড়িয়ে আছে তখনও। আমাকে পুনরায় জিজ্ঞেস করলেন, কি হলো তুমি অমন দূরে সরে গেলে কেন? কাছে এসো। এসো বলছি। -না। -কেন? -আপনার কাছে গেলে আমার শরীরে উত্তেজনা হয়। -উত্তেজনা? -হ্যাঁ। আমি নিজেকে সামাল দিতে পারি না। যৌন অনুভূতি জাগে আমার মনে। মনে হয় আপনিই আমার আদর্শ নারী। আমার জীবনকে সমৃদ্ধ করে দিতে পারেন আপনি। দিনে রাতে জেগে ঘুমিয়ে আমি শুধু আপনাকেই দেখি। মনে হয় যাকে ভালোবাসতে চাই, যাকে নিয়ে আজীবন শুধু সুখ পেতে চাই সে শুধু আপনিই। আমি আপনাকে ভালবাসি ম্যাম। আমি ভালবাসি। বলতে বলতে আমার ঠোট কেঁপে যাচ্ছিল, গলার স্বর আরো আড়ষ্ট হয়ে যাচ্ছিল। ম্যামকে দেখলাম অবাক হয়ে আমার দিকে চেয়ে আছেন। আমার কথা শুনে উনি পুরো স্তব্ধ হয়ে গেছেন। ভিজে শার্টটা হাতে নিয়ে আমার দিকে আসবেন, না আসবেন না, ভেবে পাচ্ছেন না। আমি এক নিমেষে মনের সব দূর্বলতাকে ভেতর থেকে বার করে দিয়েছি। ম্যামকে আর আমি সুযোগই দিলাম না কথা বলার। দৌড়ে গেলাম এবার ম্যামের দিকে। দুহাতে জাপটে ধরলাম নরম তুলতুলে শরীরটাকে। ম্যামের কালো স্যান্ডো গেঞ্জী, আর গেঞ্জীর নিচে স্তনদ্বয় আমার বুকের সাথে লেগে পিষ্ট হলো। আস্টেপিস্টে ম্যামকে জড়িয়ে গোলাপি ঠোঁটে ঠোঁট রেখে আমি আবিষ্ট হয়ে গেলাম। সমগ্র সুখানুভূতি আমার শরীরের প্রতিটি রোমকূপে ছড়িয়ে পড়ছিল। একনাগাড়ে চুমু খেতে খেতে ম্যামের দুটো ঠোঁট প্রবল ভাবে আঁকড়ে ধরলাম ঠোঁট দিয়ে। চুষতে লাগলাম। জীবনে এই প্রথম কোনো মহিলার ঠোট চুষছি। মেয়েমানু্ষের ঠোঁট চুষে এত পুলক হয়, আগে জানতাম না। ঠোঁটের মিষ্টতা আমাকে আরো লোভী করে রাখছিল। সোনালী ম্যামের ঠোট আমি কিছুতেই ছাড়তে চাইছিলাম না। -ছেড়ে দাও, ছেড়ে দাও আমাকে। কি করছ তুমি আমাকে? -না ছাড়ব না। -ছেড়ে দাও প্লীজ। নইলে আমি- -নইলে কি? আমাকে তাড়িয়ে দেবেন? কলেজে গিয়ে রিপোর্ট করবেন আমার নামে? আমি কলেজ থেকে বিতারিত হয়ে যাবো? আর কোনোদিন মুখ দেখাতে পারব না কাউকে? সারাজীবন শুধু এই আফসোস নিয়ে বেঁচে থাকব, যে আমি কোনো এক ম্যাডামের প্রতি আকর্ষন বোধ করে তার চরম শাস্তি পেয়েছি। সেই ম্যাডামকেও অনেক দিনের না পাওয়া সুখ আমি দিতে চেয়েছিলাম। ম্যাডাম তা গ্রহণ করেননি। আমাকে বুঝতে পারেন নি। আমি জোড় করে কাউকে কিছু করতে চাই না। আমি এমনি চলে যাব। অনেক দূরে। কাউকে কিছু না জানিয়ে। কলেজেও যাব না। ম্যাডাম আপনাকেও মুখ দেখাব না। কথা দিচ্ছি। সোনালী ম্যামের ঠোঁটটা ছেড়ে আমি মুখ নিচু করে ফেলেছি আবার। যেন আমি অনুতপ্ত। আমার দিকে সোনালী ম্যাম কিছুক্ষণ তাকিয়ে চুপ করে রইলেন। ওনার হৃদয়, মন উদার কিনা জানি না। ম্যামের রসালো গোলাপী ওষ্ঠদ্বয় খুব সহজভাবেই আমার দিকে এগিয়ে এল। সহানুভূতিটা আমার প্রতি যা দেখালেন, তা চোখে পড়ার মত। আমি সোনালী ম্যামকে আমার মত করেই এবার ফিরে পেলাম। দুহাতে আমার মাথাটা দুপাশে ধরে আমার দিকে চেয়ে উনি বললেন, ভেবে দেখেছ? যা বলছ, তা যদি বাস্তবে রূপান্তরিত করতে হয়, অনেক ঝড় ঝাপটা তোমাকে সহ্য করতে হবে। তুমি রাজী তো? এরপরে স্বেচ্ছায় আমার ঠোটে ঠোট লাগিয়ে মনভোলানো চুম্বন। যেন হাই ভোল্টেজ কারেন্ট। মনে হলো যে সম্পর্কটা আজ থেকে শুরু হলো, সেটা যেন আজীবনের জন্য থেকে গেল। ম্যাম আমার ঠোটে নিজের ঠোটের প্রলেপ দিতে দিতে বললেন, কি আজ থেকে এই সম্পর্ক থাকবে তো? পারবে তো তোমার বাবাকে রাজী করিয়ে নিতে? -পারবো। আমি এবার ম্যাডামের ঠোট পুনরায় চুষতে লাগলাম। কামনার শক্তি প্রবল ভাবে এসে গেছে শরীরে। ম্যাডামকে আবেগে তুমি বলে ফেললাম। জিভের লালা দিয়ে ম্যাডামের ঠোটে মাখিয়ে, সেই ঠোটই আবার মধু চোষার মত চুষতে লাগলাম। ম্যামের চুলের পেছনটা হাত দিয়ে মুঠি করে আমি আঁকড়ে ধরেছিলাম। ঠোটের মধ্যে জিভ চালিয়ে মনে হলো মিষ্টি কোনো সতেজ লালা বয়ে যাচ্ছে। যেন পরিশ্রুত মধুর চেয়েও মিষ্টি। ম্যাম যেন এবার একটু লজ্জা পেলেন। আমার মত উনিও আমাকে ছেড়ে তখন একহাত দূরে দাড়িয়ে। হাত দিয়ে নিজের ঠোট মুছছেন, আমি যেন বেশী মাত্রায় চুমু খেয়ে ফেলেছি তাকে। -কি করেছ তুমি? দেখো আমার ঠোট? -কি হয়েছে? রক্ত বেরোচ্ছে? কামড়ে দিয়েছি? কই না তো? এগিয়ে গেলাম, ম্যামের দিকে। সোনালী ম্যাম আমার দিকে তাকাতে পারছেন না। আমি বললাম, দেখি তোমার ঠোটটা। কেটে গেছে? কই না তো? থরথর করে কাঁপছে ম্যামের সারা শরীরটা। জড়িয়ে ধরে আবার চুমু খেলাম সেই আকাঙ্খিত ঠোটে। এখন যেন বারবার চুমুতে ভাসিয়ে দিতে পারি মিষ্টি ঠোটদুটোকে। বুকের স্যান্ডো গেঞ্জীটা হাত লাগিয়ে খুলতে ইচ্ছে করছিল নিমেষে। আমার মুখ ম্যামের বুকের মধ্যে আশ্রয় খোঁজার চেষ্টা করছিল। আমাকে বুকে নিয়ে উনি বললেন, তুমি এত ফার্স্ট? এত চঞ্চল হয়ে পড়েছ? কেন? আমি তো তোমাকে হ্যাঁ বলেই দিয়েছি। তবে কেন এমন করছ? বলো, বলো আমাকে। -আমি পারছি না। সেই শরীরের কষ্টটা জ্বালিয়ে মারছে একসপ্তাহ ধরে। আজ আমার এর থেকে মুক্তি। কষ্ট থেকে মুক্তি দাও আমাকে। প্লীজ- স্যান্ডো গেঞ্জীর ওপর আমার ওঠানামা করা মুখটা যেন আড়ালে থাকা বক্ষ সম্পদের আসল স্বাদ পেতে চাইছে। বুক উন্মোচন করার পর স্তন মুখে নিলে হয়তো কষ্ট কিছুটা লাঘব হবে। আমি সোনালী ম্যামকে উলঙ্গ করার আগে পর্যন্ত নিজেকে শান্ত করতে পারছি না। গেঞ্জীটা নীচে থেকে টান দিয়ে তুলে দিলাম ওপরের দিকে। দুটো গোল গোল পৃথিবী আমার চোখের সামনে উন্মুক্ত হয়ে গেল। মনে হলো স্বর্গের কোনো অপ্সরীকে দেখছি আমি। ম্যামের গেঞ্জীটা পুরোটাই টেনে খুলে দিলাম। দুটি উন্মুক্ত স্তনযুগল আমার সামনে। মনে হলো, স্বর্গের অপ্সরী কিন্নরীদের শরীরের আকর্ষণে অনেক দেবতার পণপ্রতিজ্ঞা ধ্যাণ তপস্যায় ইতি ঘটে যেত এর আগে শুনেছি। কিন্তু আজ আমি যা দেখছি, আমার সমস্ত কল্পনাকেও যেন ছাড়িয়ে গেছে ওনার শরীরি সৌন্দর্য। এমন নিখুত সুন্দর কোনো মেয়ের শরীর হতে পারে? শুনেছি মেয়েদের স্তনের বোঁটা চুষলে, ছেলেদের নাকি অদ্ভূত উত্তেজনা আসে শরীরে। সোনালী ম্যামের শ্রীফল দেখে আমার চোষার আগেই উত্তেজনা আসতে লাগলো। ডাঁসা আপেলের মত ম্যাডামের সুন্দর সুডৌল স্তন এবার আমি মুখে পুরে দুধ চোষার মত চুষতে লাগলাম। আমার শরীরের মধ্যে দিয়ে অদ্ভুত এক শিহরণ স্রোত বয়ে যেতে লাগলো। বোঁটা চাটতে চাটতে আমার মনে হলো এর মধ্যে এক অদ্ভূত সুন্দর স্বাদ আছে, যেন মদের নেশার চেয়েও সে নেশা হাজার গুণ বেশি মধুর। ভিজে প্যান্টের তলায় লৌহ কঠিন দন্ড আমার ফুঁসছে। মনে হলো ম্যাডামকে আমি বেডরুমে নিয়ে যেতে পারি, আজ আমাদের প্রথম আনন্দ সঙ্গমের এটাই উপযুক্ত সময়। সোনালী ম্যামের একটা স্তনের বোঁটা আমি মুখে পুরে নিয়ে চুষছিলাম, অন্য হাতে আরেকটা মুঠো করে নিয়ে চটকাচ্ছিলাম। ম্যামের চোখদুটো বন্ধ হয়ে গেছে গভীর আবেশে। ওর মুখে এক অব্যক্ত তৃপ্তির স্বাদ, যেন সেও তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করছে। এভাবে আরও কতক্ষণ স্তন চোষণ আর মর্দনের কর্ম চলল তা জানি না। আমার তখন নেশা ধরে গেছে। স্তনদুটোকে নিয়ে এক নতুন খেলায় মত্ত হয়ে পড়েছি আমি। শরীরের গাড়ি যেভাবে ছুটতে শুরু করেছে, সহজে থামবে না। ম্যাম আমাকে আবেগে বললো, এভাবে তোমাকে কতক্ষণ বুকে ধরে রাখতে পারবো আমি জানি না। আমার সারা শরীর শিরশির করছে। আচ্ছন্ন মত হয়ে গেছে সোনালী ম্যামের শরীর। মনে হলো শরীরের ভরটুকু উনি আমার ওপরই দিতে চাইছেন। স্তন চুষে এদিকে আমার আঠারো বছর বয়সের এরকম ফিলিং প্রথম। বোঁটাটা যে কি মধুর বস্তু ভাষায় বোঝাতে পারব না। -থামাও তোমার জিভের আদর এবার। আমি আর পারছি না। মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে ম্যামকে সঙ্গম করার প্রবল ইচ্ছ। আমি ওর নরম তুলতুলে শরীরটাকে দুহাতে তুলে নিলাম। যে ঘরে কোনোদিন ঢুকিনি, সে ঘরে এবার প্রথম ঢুকলাম ম্যাডামের শরীরটাকে দুহাতে ধরে। ঘরটা অন্ধকার। শুধু একটা নীল রঙের নাইট বালব জ্বলছে। বিছানায় ওর শরীরটাকে শুইয়ে দেবার আগে আমি তুপ্তি করে ওর ঠোটে চুমু খেলাম বারবার। ম্যাম শুয়ে আছে ধবধবে সাদা চাদরে ঢাকা বিছানায়। দুহাতের বাহূ দিয়ে ঢেকে ফেলেছে বুকদুটো। আমি ভিজে প্যান্টটা আসতে আসতে খুলছি। জাঙিয়াটাও নামিয়ে দিলাম। এরপর সোনালীর ম্যামের ঘাঘড়াটা খুলে তারপর প্যান্টিটা উন্মোচন করতে হবে। তারপর ঢুকিয়ে দিতে হবে পেনিসটা যোনীর ভেতরে। সারা শরীর অদ্ভূত রোমাঞ্চে মথিত। এমন অভাবনীয় সুখের মূহূর্ত জীবনে আসবে কোনোদিন কল্পনা করতে পারিনি। ঘাঘড়াটা খুলে প্যান্টিটা নীচে নামানোর সময় ও শুধু একটা কথাই বলে উঠল, তোমাকে একটাই অনুরোধ, কলেজে কিন্তু কাউকে কিচ্ছু বোলো না। তাহলে আমার খারাপ লাগবে। আমাকে তাহলে হয়তো কলেজে ছেড়েই চলে যেতে হবে কোনোদিন। -না না। কেন তা আমি বলবো? তুমি এই কলেজেই পড়াবে। আর আমি তোমাকে সারা জীবন- ম্যামের যোনীদ্বারে যখন হাতের তালু দিয়ে স্পর্ষ করতে শুরু করলাম ও ভীষন কেঁপে উঠল। ওকে বললাম, আমার বয়স কম বলে তুমি নার্ভাস হোচ্ছ? আমি ঠিক করতে পারব তোমাকে। আসতে আসতে ওর শরীরের ওপর চড়াও হলাম আমি। ওর পাদুটোর মাঝখানে আমার পেনিসটাকে মুঠো করে ধরে যোনির মুখে লাগানোর চেষ্টা করতে লাগলাম। প্রথম সঙ্গম করছি। একটু ভয়ে ভয়ে খুব আসতে আসতে চাপ দিতে লাগলাম। কিন্তু তারপরে চাপ দিতেই ও কঁকিয়ে উঠল।- না না আসতে কর আসতে কর প্লীজ- কতদিন এ যোনি পুরুষ লিঙ্গের স্পর্ষ পায়ে নি? হ্যাঁ একবারই পেয়েছিল সোনালী ম্যামের শরীর, এক হতভাগা পুরুষের-লিঙ্গের স্পর্ষ। সফল সঙ্গমলীলা যে কত সুন্দর তার কোনো স্বাদই পায়নি সোনালী ম্যাম। সঙ্গমের চরম সুখের আনন্দ তাকে এতদিন বঞ্চিত করেছে। আজ অন্তত একটু হলেও তাকে অমৃত লাভের সুখ দেওয়ার আপ্রান চেষ্টা আমি করবো। আমি এবার এমন ভাবে লিঙ্গটাকে চালনা করতে লাগলাম, যাতে ওর আরাম লাগে। দুহাতে আমার শরীরটাকে জড়িয়ে ধরল সোনালী ম্যাম। আমি বুঝতে পারছি, আমার লিঙ্গ দু থেকে তিন, তারপর চার ইঞ্চি ভেতরে ঢুকে যাচ্ছে আসতে আসতে। মিলনের মূহূর্তে আমার ঠোট ম্যামের ঠোটটাকে আবার আঁকড়ে ধরলো আগের মত। আমি এবার ঠোট চুষতে চুষতে পেনিসটাকে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ভেতরে চালাতে লাগলাম। বুঝতে পারলাম এবার ওর ভালো লাগছে। আগের মত চনমন করে উঠছে না। আমার মনে হচ্ছে ওর কষ্ট হচ্ছে না। আমাকে জড়িয়ে ধরে ও এবার চুম্বনের আদান প্রদান করতে লাগল। বুঝতে পারলাম, আমার লিঙ্গের এবার সবটাই গিলে খেয়ে নিচ্ছে সোনালী ম্যামের ভ্যাজাইনা। আসতে আসতে স্টার্ট নিয়েছিল গাড়ি। এবার ক্রমশই বাড়াতে লাগলাম স্পীড। ফুল স্পীডে যখন চলছে, ম্যাম দুহাত দিয়ে প্রচন্ড জোড়ে চেপে রাখলো আমাকে। অনুভব করলাম, চরম সুখ বলে যে বস্তুটা আছে, সেটা পয়সা দিয়ে কেনা যায় না। নারী ও পুরুষ দুজনের একান্ত চেষ্টায় তা তৈরী হতে পারে। চরম মূহূর্ত এসে যাচ্ছে। প্রায় একঘন্টা হয়ে গেল, আমি ম্যামকে একনাগাড়ে করে যাচ্ছি। স্বর্গীয় অনুভূতিতে আচ্ছন্ন হয়ে পড়েছে শরীরটা। মনে হলো সেই স্বপ্নের মত দৃশ্যটা বাস্তবে যদি এবার রূপান্তরিত করা যায় কেমন হবে। ম্যামকে বললাম-নাও এবার তুমিও আমাকে নিয়ে একটু সুখ কর। আশ্চর্য, ও কিন্তু এবার আমাকে নিচে রেখে ওপরে উঠে পড়ল। যেন ওর পালা এবার। নমুনা দেখাতে শুরু করলো। প্রথমে আমার নিরাবরণ নগ্ন শরীরটাকে দুহাতে জড়িয়ে ধরে টানটান হয়ে শুয়ে পড়ল আমার শরীরটার ওপরে। জিভ দিয়ে চাটতে থাকল আমার গাল, কপাল ঠোঁট। ম্যামকে যেন এবার অন্যরকম দেখছি। ওর জিভ আসতে আসতে নামতে লাগল আমার গলায়, বুকে, এরপর সে উঠে বসল আমারই বুকের ওপর। মুখ নামিয়ে আনল আমার নাভিতে। এরপর সে চাটতে চাটতে মুখটা নিচের দিকে নামিয়ে তলপেটের নিচে চলে এল। আমার শরীরেও উত্তেজনার রেশ রয়েছে তখন। বললাম, আর কত নিচে নামবে সোনালী? ও এবার অবাক করে আমাকে বললো-আমার শরীর যে গরম হয়ে গেছে। আমি তোমারটা এখন সাক করি। পেনিসটা ও মুখে পুরে চুষতে লাগল। জিভের অদ্ভূত ক্রিয়াকান্ডে আমার উত্তেজনা চরমে পৌঁছে দিচ্ছিল। বললাম, আমাকে একাই ভোগ করবে? এবার আমাকেও করতে দাও। সোনালী মুখ থেকে পেনিসটা না বার করেই জড়িয়ে জড়িয়ে বলল, তোমার যদি সুখ হয়, তুমিও সাক কর। আমারও ভালো লাগবে। সোনালী পা দুখানা একটু উঁচু করে তুলে আমার ঘাড়ের দুপাশে মেলে ধরে যোনিটা এমন ভাবে আমার মুখের কছে এগিয়ে ধরল যে আমার জিভটা লোভ সামলাতে না পেরে তৎক্ষনাৎ বেরিয়ে এসে ওর যোনি চাটতে আরম্ভ করে দিল। জিভের স্পর্ষে ওর শরীরও কাঁপতে থাকল। জিভটা ওর যোনির গহবরে আসতে আসতে ঢোকাতে লাগলাম। বুঝতে পারলাম, সোনালী ছটফট করছে। ও এবার চুষতে চুষতে কামড়ে ধরল আমার পেনিসটাকে। আমি ব্যাথা পেলাম বেশ। বুঝতে পারছি সোনালী যেভাবে আমার শক্ত পেনিসটা মুখে পুরে বেশ জোড়ে জোড়ে রমন করতে শুরু করেছে, চরম মূহূর্ত আসতে খুব বেশি দেরী হবে না আমার। ঠিক এই কারণেই আপনা থেকে আমার জিভটাও ওর যোনি গহবরে ক্ষিপ্ত বেগে খেলা করতে লাগল। আরো কয়েক মিনিট কেটে গেল। আমরা দুজনেই তখন দিগ্বিদিক জ্ঞানশূন্য হয়ে এক অপূর্ব সুখের সন্ধানে মেতে উঠেছি। সোনালীর গোঙানি কানে আসছে, আর আমরা দুজন আনন্দ-সমুদ্রে ভেসে চলেছি। দুচোখ বন্ধ করে এক অনাবিল সুখানুভূতিতে আচ্ছন্ন হয়ে পড়লাম। আমার জিভের কাজ দ্রুত থেকে দ্রুততর হচ্ছে আপনা আপনি। বুঝতে পারলাম সোনালীর বৃত্তাকার ওষ্ঠের রমণও অসম্ভব গতিশীল হয়ে উঠেছে। দুজনেরই চরম মূহূর্ত এসে উপস্থিত। আমি দুহাত দিয়ে চেপে ধরেছি ওর পাছাদুটো। সোনালীও আঁকড়ে ধরেছে আমার জংঘা। শেষ মূহূর্ত এসে গেছে। আমি বেশ চেঁচিয়েই বললাম, সোনালী তুমি মুখ সরিয়ে নাও, স-রা-ও- আশ্চর্য সোনালী মুখ সরালো না। আলতো ভাবে কামড়ে ধরে রইল আমার শক্ত পেনিসটাকে। চিড়িক চিড়িক শব্দ করে গলগল ধারায় বীর্যপাত ঘটে গেল ওর মুখের মধ্যে। পরিমাণে অনেকটা। ওর গাল ভরে উপচে পড়তে শুরু করল। আমি বললাম, কি হলো মুখটা সরালে না কেন? আমাকে অবাক করে সোনালী বলল, ইচ্ছে করেই। খাব বলে। আমার খুব ভালো লাগছে। কী দারুন টেস্ট। ঘরের মধ্যে একটা ফোন ছিল জানতাম না। আচমকা ওটা বেজে উঠল। হঠাৎই ঘুমটা ভেঙে গেল আমার। একি? এ আমি কোথায়? আমি যে নিজের বিছানায় শুয়ে রয়েছি। কোথায় সোনালী কোথায় সেই ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি? এ যে ঝলমলিয়ে রোদ। সকাল হয়ে গেছে। আমি কি তাহলে আবার আর একটা স্বপ্ন দেখলাম? স্বপ্নেই আমার সুখানুভূতি হলো? বীর্যপাতটা হওয়ার মূহূর্তেই স্বপ্নটা ভেঙে গেছে। ফোনটা তখনও বাজছে। ওটা আমারই ঘরের ফোন। রিসিভারটা তুললাম, গলাটা ফিরোজের। বললো, কলেজে এলি না তো? ম্যাডাম কলেজ ছেড়ে ছেড়ে চলে যাচ্ছেন। -কলেজ ছেড়ে চলে যাচ্ছেন? -হ্যাঁ। আর দেখতে পাবি না ওনাকে। তোর কথা আজকেও জিজ্ঞাসা করছিল। এতক্ষণে হয়তো ফ্ল্যাটটাও ছেড়ে দিয়েছেন। তাড়াতাড়ি গিয়ে ধর। না পেলে হয়তো স্টেশনে দেখা পেয়ে যাবি। পড়িমড়ি করে ছুট লাগালাম, ম্যাডামের ফ্ল্যাটের দিকে। কিন্তু ফিরোজের কথাই সত্যি হলো। ম্যাডাম একটু আগেই ফ্ল্যাট ছেড়ে চলে গেছেন। আমাকে এবার স্টেশনের দিকে ছুটতে হলো। হঠাৎ একি সিদ্ধান্ত নিলেন ম্যাডাম? মন কিছুতেই মেনে নিতে পারছে না। উনি কোথায় যাচ্ছেন জানি না। আমার মনের কথাটা আর বলা হলো না। সুখানুভূতি শুধু স্বপ্নেই থেকে গেল। ভীষন খারাপ লাগছিল। কারন স্টেশনে একটি মাত্রই ট্রেন ছিল দাঁড়িয়ে। সেটাও স্টেশন ছেড়ে চলে যাচ্ছে হূইসেল বাজিয়ে। তাহলে কি সোনালী ম্যাম ঐ ট্রেনেই? পিছনে ফিরলাম। দেখলাম আমার একটু দূরেই দাঁড়িয়ে আছেন সোনালী ম্যাম। আমার যেন জীবনে নতুন প্রাণ ফিরে এল। ম্যাম আপনি চলে যাচ্ছিলেন? আমি তো? জানতাম, তুমি ঠিক আসবে। তাই পারলাম না যেতে। তোমাকে নিয়ে আমার দেখা স্বপ্নটাই শেষ পর্যন্ত যেতে দিল না আমাকে। স্বপ্ন ম্যাম তুমিও? আমি অবাক হয়ে দাঁড়িয়ে রইলাম। সোনালী ম্যাম তখন আমার মুখের দিকে তাকিয়ে হাসছেন।

Share Bangla Sex Story
Reply


Forum Jump:


Users browsing this thread: 1 Guest(s)

About RareDesi.com

Focus MyBB Theme is designed for MyBB 1.8 series and is tested properly till the most current version of MyBB i.e. 1.8.19. It is simple, clean and light MyBB theme with use of font-awesome icons and shrinking header.

For any more information, please use our contact form.

              Quick Links

              User Links

              Advertise